একজন গর্ভবতী নারীকে যে কথাগুলো কখনোয় বলা উচিৎ নয়

একজন নারীর জন্য মাতৃত্ব একটি অন্যতম প্রাপ্তির নাম। প্রথম যখন কোন নারী গর্ভবতী হয় তখন সে একটি অজানা আর শঙ্কাপূর্ণ সময়ের মধ্য দিয়ে যায়। আর এই অবস্থায় একজন গর্ভবতী নারীর সাথে কথোপকথন বেশ ভেবে চিনতে করতে হয়। হয়তো আপনার কোন কথায় সে কষ্ট পেতে পারে আবার মানসিকভাবে ভেঙ্গে পরতে পারে এমনকি ভয় অব্দি পেতে পারে, যেটা সেই নারী এবং তার পেটের সন্তান দুয়ের জন্যই খারাপ হতে পারে।

যে কথাগুলো একজন গর্ভবতী নারীকে কখনই বলা উচিৎ নয়ঃ

* কোন গর্ভবতী নারীকে দেখে আগেভাগেই ভবিষ্যৎবাণী করা উচিৎ নয় যে তার ছেলে হবে নাকি মেয়ে হবে। একেকজনের আশা একেকরকম থাকে। তাই আপনার এই অমূলক আগাম বার্তা একজন গর্ভবতী নারীকে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত করতে যথেষ্ট।

* প্রথম যারা মা হতে যায় তাদের সা মনে গিয়ে আপনি যদি বলেন যে তাকে দেখে মনে হচ্ছে তার জমজ বাচ্চা হবে, তবে সেই গর্ভবতী মাকে ভয় পাইয়ে দিতে আর কিচ্ছু লাগেনা। আর বিশ্বাস করুন তার এই ভয় বোধ তার মানসিক আর শারীরিক উভয়ক্ষেত্রেই বিরূপ প্রভাব ফেলতে বাধ্য।

* অনেককেই দেখা যায় যে সামনে কোন গর্ভবতী নারী দেখেলেই বলে বসেন “এখন থেকে ঠিকঠাক ঘুমিয়ে নাও এরপর থেকে তোঁ আর ঘুমাতে পারবেনা”, আবার কেউ কেউ বলে থাকেন “বাচ্চা কাচ্চা মানেই নিজেদের আরাম আয়েশের জীবন শেষ।” একবার ভেবে দেখেছেন আপনার এই কথাগুলো কতোটুকু মার্জিত? আপনার এই অনুভূতিহীন কথাগুলো কোন গর্ভবতী নারীর সামনে না বলাই বুদ্ধিমানের কাজ।

* আমরা অনেকেই কোন গর্ভবতী নারী দেখলেই তার পেটে স্পর্শ করে দেখতে চাই, অথবা কোন অনুমতির বালাই না করেই পেটে হাট দিয়ে বসি। এটি নিতান্ত রুচিহীন একটি কাজ, এটি যে কেবল সন্তানসম্ভবা নারীকে অস্বস্তিতে ফেলে তাই নয় বরং আপনার এই কাজটি তার মনে বিরক্তি বা ভয়ের সৃষ্টি করতে পারে।

* আমরা অনেকেই গর্ভবতী নারীর সামনেই সন্তান জন্মদান প্রক্রিয়া নিয়ে দীর্ঘ আর ভয়াবহ ব্যাখ্যা প্রদান করে থাকি। মূল ব্যাপার হচ্ছে সন্তান জন্ম দিতে গিয়ে কি সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় আর কতোটা কষ্ট সহ্য করতে হয় এটি থাকে আমাদের আলোচনার মূল আলোচ্য বিষয়। আজই এই অভ্যাস ত্যাগ করুন, আপনার এই দীর্ঘ ব্যাখ্যা গর্ভবতী মায়ের মন আর শরীর দুটোর জন্যই হানিকর হতে পারে।

* মাঝে মধ্যে পরিবারের মানুষগুলোই গর্ভবতী নারীর ধীর স্থির চলাফেরা আর দুর্বল স্বাস্থ্য নিয়ে নানা মন্তব্য করে ফেলি। মনে রাখতে হবে সবার শারীরিক সুস্থতা আর মানসিক শক্তি একরকম হয়না। তাই এই সময়টাই তার শারীরিক ও মানসিক দুর্বলতা নিয়ে নেতিবাচক মন্তব্য না করে বরং তাকে সাহস দেওয়াটাই উত্তম।

একজন নারীর সুস্থ মাতৃত্ব নিশ্চিত করতে তার প্রতি যত্নবান হওয়া উচিৎ। এমন কোন কথা বা কাজই তার সাথে না করা উচিৎ যাতে করে সে শারীরিক বা মানসিকভাবে ভেঙ্গে পরে।
সোর্সঃ http://www.buzzfeed.com/mikespohr/things-you-should-never-say-to-your-partner-when-shes-pre