গুরুজন ও বয়োজ্যেষ্ঠদের শ্রদ্ধা ভক্তি অর্জনে যে যে বিষয়গুলো খেয়াল রাখবেন

respect for the elderly

গুরুজন কিংবা বয়োজ্যেষ্ঠ বা মুরুব্বী শ্রেণীর মানুষেরা আমাদের জীবনের সঙ্গী। সময়ে সময়ে এরা আপনার জীবনে টনিক হিসেবে কাজ করবে যদি আপনি তাদের সাথে একটি সুসম্পর্ক বজায় রাখতে পারেন।

সমাজে একটি কথা আছে “দশে মিলে করি কাজ, হারি জিতি নাহি লাজ”।

ব্যক্তিগত, সামাজিক, কর্ম জীবনে তাই গুরুজনদের ভূমিকা অনস্বীকার্য। অনেক সময়ই তাদের ভক্তি অর্জনে ব্যর্থ হই।

কিভাবে তাদেরকে আমরা আমাদের কাজে লাগাতে পারি, কিভাবে তাদের শ্রদ্ধা করে স্নেহ লাভ করতে পারি সে সম্পর্কে চলুন জেনে নিই-

১) আচার আচরণ

গুরুজন এবং বয়স্ক ব্যক্তির সাথে নম্রভাবে বিনয়ী সুরে কথা বলুন যাতে তারা কোন প্রকার কষ্ট না পায়। দেখা হলে তাদেরকে সালাম দিন, হাসিমুখে কুশল বিনিময় করুন অথবা পরিচয় ও আদব কায়দায় এমন কিছু করুন যাতে সহজেই তিনি আপনার দিকে মনোনিবেশ করতে পারেন।

কখনো কটু কথা বা ব্যঙ্গ করে কথা বলবেন না বা আঘাত করবেন না। এতে তিনি মনে কষ্ট পাবেন।


আরো পড়ুনটিনেজ বা কিশোরী মেয়েদের সাথে পরিবারের সদস্যরা কেমন আচরণ করবেন


আপনি যদি তাকে খুশি বা সন্তুষ্ট না করতে পারেন তাহলে সম্বোধন করে সুন্দরভাবে বলুন “দুঃখিত, আমি এই মুহূর্তে আপনার জন্য এই কাজটি করতে পারলাম না/ আমার এই অসুবিধার জন্য আমি আপনার কথা রাখতে পারিনি, পরে বা নির্দিষ্ট সময়ে করে দিব, আপনি দুশ্চিন্তা করবেন না”।

বিপদে আপদে প্রয়োজনে অপ্রয়োজনে স্বল্প সময়ের জন্য হলেও তাদের খোঁজ নিন, এতে আপনি তার মনে সহজেই জায়গা করে নিতে পারবেন।

২) যত্ন বা আপ্যায়ন

আপনার সাধ্য অনুযায়ী তাদের যত্ন নিন এবং আপ্যায়ন করুন। এক্ষেত্রে কখনো কৃপণতা বা অবহেলা করবেন না। তার প্রয়োজনীয়তার দিকে গুরুত্ব দিন। প্রয়োজনে তাকে সেটা কিনেও দিন বলার আগে।

আপনার সাথে তার রুচি, রঙ, পোশাক, জীবন যাপন অনেক কিছুতে পার্থক্য থাকতে পারে। সেগুলো কখনো সমান করতে যাবেন না বা তাকে ভুল জায়গায় ঠেলে দিবেন না।


আরো পড়ুন– সেবাদানকারীর যত্ন কিভাবে নেবে


৩) সমসাময়িক আলোচনা

মানুষে মানুষে মতের মিল অমিল থাকতে পারে। সেজন্য কিছু বিষয়ে তর্ক বিতর্কও হতে পারে। গুরুজনদের সাথে বিতর্ক পরিহার করে চলতে পারেন। এমনকি যখনি দেখতে বা বুঝতে পারবেন যে বিষয়টি ঝগড়া পর্যায়ে চলে যাবে তখনি আপনি নিজ থেকে চুপ হয়ে যান।

এতে আপনি হেরে যাবেন না, বরং বুদ্ধিমানের মত জিতে গেলেন। সমসাময়িক অনেক আলোচনা থাকে যেগুলো বয়স অনুযায়ী ভিন্নতা প্রদর্শন করে।


আরো পড়ুনছোট ভাইয়ের সাথে যেমন আচরণ করবেন


আপনি তাদের সাথে সুন্দরভাবে বিষয়গুলো শেয়ার করতে পারেন এবং বুঝাতে পারেন। কখনো রাগ বা অধৈর্য হয়ে বুঝাতে যাবেন না। এতে গুরুজনরা আপনার উপর অভিমান করতে পারে।

মনে রাখবেন, আপনিও একদিন বয়োজ্যেষ্ঠ হবেন, কারো কাছে গুরুজন হবেন। আপনি তাদেরকে যেভাবে শ্রদ্ধা করবেন, আপনাকেও মানুষ সেভাবে শ্রদ্ধা করে আপনার স্নেহভাজন হবেন।


সম্পর্কিত পোস্ট: