ছোট ভাইয়ের সাথে যেমন আচরণ করবেন।

younger-brother

পৃথিবীর অধিকাংশ ছোট ভাইদের যদি জিজ্ঞেস করেন, তারা সবাই বড় ভাইদের নামে অন্তত হাজারখানেক কমপ্লেন জানাবে।

কারণ পৃথিবীর বেশিরভাগ বড় ভাইয়েরা সাধারণত তাদের উপর কর্তৃত্ব ফলান (আমি সবার কথা বলছি না)।

একজান বড় ভাই হিসেবে আমি বুঝতে পেরেছি যে ছোটদের সাথে কেমন আচরণ করা উচিত (সম্পূর্ণ আমার নিজের অভিমত)। আসুন সে নিয়ে একটু আলোচনা করি।

সবসময় ভাল ব্যবহার করুনঃ

ছোটদের মন সবসময় কোমল থাকে। তারা সবসময় দেখে শিখে। আপনি যদি তাদের সাথে ভাল আচরণ করেন তাহলে সেও ভাল ব্যবহার শিখবে। আর খারাপ করলে খারাপ। এখন সিদ্ধান্ত আপনার।

অযথা বকবেন নাঃ

ছোটরা কখনো বড় ভুল করে না। তাই তাদের আড়ম্বর করে বকার দরকার নেই। ভুল হলে সেটা তাদের যত্নের সাথে বুঝিয়ে দিন।

সেই ভুল আর কোনদিন করবে না। আর আপনি যদি সেটা নিয়ে বেশি বাড়াবাড়ি করেন, তার জেদ আরো বেড়ে যাবে।

ওদের বুঝতে শিখুনঃ

আপনার সাথে ছোটদের মনস্তাত্বিক মিল কখনোই থাকবে না। আপনি পরিপক্ক, আর তারা অনেকদিক থেকেই অবুঝ।

তাই ওদের বুঝার চেষ্টা করুন। নাহলে আপনার সাথে তার মতের মিল নাও হতে পারে।


আরো পড়ুন– আপনার ছোট ভাইটির সাথে মধুর সম্পর্ক গড়ে তুলে ৫ টি পরামর্শ


নিজের মিশ্র ইমেজ তৈরি করুনঃ

ভাই বা বোনের কাছে নিজের শুধু একটা দিক তুলে ধরবেন না। আদর করার সময় আদর করুন।

আবার যখন শাসন করার দরকার হলে শাসন করুন, তবে খেয়াল রাখুন সেটা যেন একটা লিমিটে থাকে। আবার তার সাথে মজাও করুন। তাকে আপনার জানা মজার ট্রিক শিখিয়ে দিন।

সবচেয়ে ভাল বন্ধু হোনঃ

ছোটরা সবসময় সবাইকে সব বলে না। তারা সবচেয়ে যাকে বেশি ভালবাসে, তাকেই সব বলে। তাই তাদের মনের মত করে নিজেকে উপস্থাপন করার চেষ্টা করুন।

ওদের গুরুত্ব দিনঃ

পরিবারের কনিষ্ঠ সদস্য বলে তাদের অবহেলা করবেন না। তাদের সমস্যা বা সিদ্ধান্তকে গুরুত্ব দিন।

পারিবারিক অনুষ্ঠানে ওর বন্ধুদের ইনভাইট করুন। ওর ভাল লাগবে। ও যেন নিজেকে সবসময় পরিবারের একজন গুরুত্বপূর্ণ সদস্য ভাবে।


আরো পড়ুনযেভাবে আপনার ছোট বোনটির কাছের বন্ধু হয়ে উঠবেন


বেগার খাটানো বন্ধ করুনঃ

ওদের দিয়ে কখনো আজেবাজে কাজ করাবেন না। বিশেষ করে যারা সিগারেট খান, ছোটদের দিয়ে কখনো সিগারেট ক্যারি করাবেন না।

পারলে তাদের সামনে ধুমপান না করার চেষ্টা করুন। নিজের কাজ কখনো ওদের দিয়ে করাবেন না। তাদের মনে ক্ষোভ জমতে পারে।

আস্থা ও ভরসার স্থানঃ

ও যেন আপনার উপর আস্থা রাখতে পারে। সব কাজে ওকে সহযোগিতা করুন। ওর নতুন প্রশ্নের জবাব দিতে বিরক্তবোধ করবেন না। তাহলে ও আর কখনো প্রশ্ন করবে না। জ্ঞানের সীমা ছোট হয়ে যাবে।


সম্পর্কিত পোস্ট: