ডেঙ্গুজ্বর প্রতিরোধে করণীয়

Mosquitoes

ডেঙ্গু জ্বর দেশে মহামারী আকারে ছড়িয়ে পরেছে। রাজধানীতে দিন দিন এর প্রকোপ বেড়েই চলেছে ফলে মানুষের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি হচ্ছে।

প্রতিদিন হাসপাতাল গুলতে রোগীর সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে। এখন ডেঙ্গু ভয়াবহ ভাবে দেশর বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে পরছে।

ডেঙ্গু মুলত একটি সংক্রামক রোগ যা এডিস মশার কামড়ে হয়ে থাকে। এডিস মশা পরিষ্কার পানিতে ডিম পারে। এডিস মশার ভিন্ন ভিন্ন  ৪ প্রকার ভাইরাস আছে।

এডিস মশা কোন ব্যক্তিকে কামড়ালে সেই ব্যক্তি ৪ থেকে ৬ দিনের মধ্যে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হন।

ডেঙ্গুজ্বরের লক্ষণঃ

ডেঙ্গুজ্বরের প্রথম লক্ষণ তীব্র জ্বর। জ্বর ১০৪ ডিগ্রি থেকে ১০৫ ডিগ্রি পর্যন্ত হতে পারে। একটানা জ্বর থাকতে পারে আবার ঘাম দিয়ে জ্বর ছড়েও দিতে পারে,পরে আবার জ্বর আসতে পারে।

তীব্র জ্বর এর সাথে শরীরে প্রচণ্ড ব্যথা, সেই সাথে মাথা ব্যথা, চখের পিছনে ব্যথা, শরীরের বিভিন্ন অংশে ব্যথা অনুভত হয়। জ্বর হবার ৪ থেকে ৫ দিন পরে শরীরের বিভিন্ন জায়গায়  অথবা সারা শরীরে লালচে দানা দেখা দেয়।

সেই সাথে শরীর দুর্বল হয়ে পড়া, বমি বমি ভাব, অতিরিক্ত ক্লান্তিবধ, রুচি কমে যাওয়া ইত্যাদি লক্ষণ দেখা দেয়।

ডেঙ্গু জ্বরে করনীয়ঃ

এবারের ডেঙ্গুজ্বরের  তীব্রতা অননান্য বাড়ের চেয়ে আলাদা। এটি আগের চেয়ে অনেক শক্তিশালী। তাই জ্বর হলেই ডাক্তার এর কাছে যাবেন।

জ্বর উঠার ৪ থেকে ৫ দিন পর সিবিসি ও প্লাটিলেট টেস্ট করতে হবে। প্রয়োজনে লিভার ও ব্লাড সুগার পরীক্ষা করে নিতে হবে।

ডেঙ্গু জ্বরের চিকিৎসা

দিনে সর্বোচ্চ ৪ বার প্যারাসিটামল খেতে পারেন। প্রচুর পানি ও তরল খাবার খেতে হবে যাতে শরীরে পানি শূন্যতা শুরু না হয়।

নরম খাবার, স্যলাইন, ফলের শরবত বেশি বেশি খেতে হবে। জ্বর বেশি বাড়লে দ্রুত চিকিৎসকের কাছে নিতে হবে।

সতর্কতাঃ  কোন ভাবেই রোগীকে এ্যাসপিরিন বা ব্যথানাশক ওষুধ খাওয়ানো যাবেনা।

সচেতনতাই পারে ডেঙ্গু জ্বর মোকাবেলা করতে। বাড়ির চারপাশ পরিষ্কার রাখা যাতে কোথাও পানি না জমে থাকে। আর জ্বর হলেই অবহেলা করবেন না দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

নোটঃ ডেঙ্গু মশার প্রজনন পরিস্কার পানিতে হয় এবং ডেঙ্গু মশা দিনের বেলা বেশি কমাড়ায়।

একমাত্র সচেতনতা ও প্রতিরোধের মাধ্যমেই ডেঙ্গুর হাত থেকে বাঁচা সম্ভব।


জরুরি ফোন নাম্বারঃ

Dhaka Medical College Hospital: 8626812-26 , 02-55165088

Chittagong Medical College Hospital: 01819-637685 , 01769247568


সোর্সঃ https://www.medicinenet.com/dengue_fever/article.htm https://www.who.int/news-room/fact-sheets/detail/dengue-and-severe-dengue