নবদম্পতিরা তাদের ভবিষ্যৎ আর্থিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করবেন যেভাবে

ok2ছবি সৌজন্য- প্রমোদ রায় চৌধুরী ও প্রিয়াঙ্কা দাশ
ফটোগ্রাফারদিপাস বড়ুয়া
একজন নারী বা পুরুষের জীবন যাপন অবিবাহিত অবস্থায় যেমনই থাকুক না কেন বিয়ের পর তা আমূল বদলে যায়। বিবাহিত জীবনে পদার্পণ করার সাথে সাথে আপনার কাঁধে এসে যায় দায়িত্ব ও কর্তব্যর মতো বিষয়গুলো। আর বিবাহিত জীবনের সকল চাহিদা ও চাওয়া পাওয়াগুলো সুষ্ঠুভাবে পূরণ করতে হলে প্রয়োজন অর্থের সুষম বণ্টন।

আর তাই বিবাহিত জীবনে পদার্পণ করার সাথে সাথেই নববিবাহিত দম্পতিদের উচিৎ ভবিষ্যৎ আর্থিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করার ব্যাপারগুলো আলোচনা করা ও প্ল্যানিং করা। যাতে আগামীতে নিশ্চিন্তে সুখে সংসার করা যায়।

আর্থিক দিকগুলো নিয়ে কথা বলা শুরু করুন (start talking about finances)

বিয়ের পর একটা ভালো সময় বুঝে দুজনের মধ্যে আর্থিক ব্যাপারগুলো নিয়ে খোলা মেলা আলোচনা করুন। আপনি মাসিক কত টাকা জমাতে চান আর কতটুকুই বা খরচ করতে চান সব বিষয়ে আপনার সঙ্গীকে জানান।

ব্যাংক অ্যাকাউন্ট সম্পর্কে কথা বলুন (discuss bank accounts)

সম্পর্কের শুরুটা করুন আপনার নিজের সম্পর্কে তার কাছে সব অজানা কথাগুলো নিয়ে। আর আর্থিক দিকটিও তার একটি। দুজন মিলে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট সম্পর্কিত কথাগুলো সেরে ফেলুন। প্রয়োজনে দুজনে মিলে একটি জয়েন্ট অ্যাকাউন্ট খুলে ফেলুন।

জরুরী সময়ের জন্য একটি ফান্ড তৈরি করুন (build an emergency fund)

যদি আপনার জরুরী সময়ের কথা ভেবে কোন ফান্ড এখন পর্যন্ত না তৈরি করে থাকেন তাহলে আর দেরি না করে দুজন মিলে একটি জরুরী ফান্ড খুলে নিন। এটার জন্য আপনাকে কোন ব্যাংকে ছুটাছুটি করতে হবে না। নিজেরা ঘরোয়াভাবে এটি খুলে ফেলতে পারেন।

মাসিক খরচের জন্য একটি বাজেট তৈরি করুন (design a budget)

যেহেতু সংসারটি আপনাদের দুজনের তাই আগেভাগে দুজন মিলে মাসিক খরচের একটি বাজেট তৈরি করে ফেলুন। কত টাকা কথায় কিভাবে খরচ করবেন দুজনে ভেবে তার সব খুঁটিনাটি বাজেটে অন্তর্ভুক্ত করুন।

নিজেদের টাকা নিজেরা হিসেব করে প্রথম থেকে ব্যয় ও সঞ্চয়ের অভ্যাস গড়ে তুললে আগামীতে অর্থ সংক্রান্ত সমস্যায় পড়তে হবে না। তাই নবদম্পতিরা প্রথম থেকেই এই ব্যাপারটিকে গুরত্ব সহকারে নিন।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।