ভালবাসুন শর্তহীনভাবে

love-unconditionally

আমাদের সম্পর্কগুলো টিকে থাকে ভালবাসার ভিত্তির উপরে। ভালবাসার ভিতরে লুকানো থাকে সম্মান, দায়িত্ব ও যত্ন। কাছের কেউ যখন একটু অসম্মান করে কথা বলে আমাদের কষ্টের সীমা থাকে না।

তখন আমরাও বিনিময়ে ঐ ব্যক্তিকে সম্মান করতে চাই না। ফলে ধীরে ধীরে এই চাওয়া পাওয়াগুলো হয়ে যায় শর্তপ্রযোজ্য।

সম্পর্কের শুরুতেই যদি শর্তহীনভাবে ভালবাসা যায় তাহলে চিত্র হয়ত বা ভিন্ন হবে।

আসুন তো এক পলক দেখি কোথায় কখন আমরা শর্ত দিয়ে দিচ্ছি আর ঐ শর্ত না দিলে কি হত-

শর্তযুক্ত দৃশ্যঃ

১. সন্তান-পিতামাতার আদরেও যখন শর্ত: মা বলছে ‘বাবা তুমি আম্মুর কথা মত চললে আম্মু তোমাকে অনেক আদর করবে। নয়তো আম্মু কিন্তু আর তোমাকে আদর করবে না।’

প্রশ্ন হল – আম্মুকি আসলেই কথা না শুনলে আদর বন্ধ করে দেয়?

উত্তর হল – না দেয় না। এই শর্ত প্রয়োগের উপকারী দিক নেই।

২. স্বামী-স্ত্রীর মধুর সময়ে: ‘এই শোন আমাকে কিন্তু সামনের মাসেে ঐ গোল্ডের নেকলেস টা দিতে হবে তুমি বলেছিলে কিনে দিবে। না দিলে আমি বাপের বাড়ি চলে যাব। আর আসব না। তখন তুমি থেকো একলা’।

প্রশ্ন হল – স্ত্রী কি আসলেই চলে যায় কিংবা গেলেও কি আর ফিরে আসে না?

উত্তর হল – ফিরে আসে। তাহলে কিছু পাওয়ার জন্য এই শর্ত কি উপকারী?

আমরা শর্ত না দিয়ে সরাসরি চাইলেই বরং কাজটা আরো সহজ হয়ে যায়।


আরো পড়ুন– নতুন সম্পর্কের শুরুতেই যে কাজগুলো সম্পর্ককে করবে দীর্ঘস্থায়ী


৩. ভাই-বোনের কথা কাটাকাটিতে: “তুই আমার কোন কথা শুনিস না, আজকে থেকে তুই আমার ভাই না।’’

প্রশ্ন হল – এভাবে কি আসলেই সম্পর্ক বিচ্ছিন্ন হয়?

উত্তর হল – হয় না। তাহলে কেন এই শর্ত আমরা ব্যবহার করি।

শর্তহীন দৃশ্যঃ

১. সন্তানের সাথে শর্ত না দিয়ে ছেলে বা মেয়ে কথা না শুনলে আমাদের রাগ লাগে কষ্ট হয়।

আমরা সেই কষ্ট বা রাগের কথাটাই যদি এভাবে প্রকাশ করি- “বাবা তুমি আম্মুর কথা না শুনলে মা কিন্তু খুব কষ্ট পায়, প্লিজ তুমি আম্মুকে কষ্ট দিওনা।”

ভালবাসার বন্ধন আরো দৃঢ় হয় এবং সম্মান বৃদ্ধি পায়।


আরো পড়ুনএকজন সচেতন অভিভাবক হিসেবে সন্তানের যে ৪ টি বিষয়ে কঠোর নজর রাখবেন


২. স্ত্রী যদি এমন করে বলে ’তুমি সামনের মাসে আমাকে ঐ নেকলেস টা দিও। আমার ওটা খুব পছন্দ হয়েছে। ওটা পেলে আমার খুব খুশী লাগবে।’’

আপনার আনন্দের খবর স্বামী জানলে সে হয়ত আপনাকে আনন্দিত দেখতে চাইবে। হয়তবা চাইবে না। ব্যক্তি বিশেষে পার্থক্য হবে।

৩. ভাই বোন যদি একে অন্যকে শাসনের সুরে বলে ’তুই আমার কোন কথা শুনিস না, এটা আমার জন্য চরম অপমানজনক।’

ছোট ভাই বা বোন নিজে অনুতপ্ত হবে বড় ভাইকে অপমান করার জন্য।


আরো পড়ুন– আপনার ছোট ভাইটির সাথে মধুর সম্পর্ক গড়ে তুলে ৫ টি পরামর্শ


ভেবে দেখুন তো যে শর্তের কোন উপকারী দিক নাই তা ব্যবহার করবেন কিনা। শর্তহীন আমরা একে অন্যের কত কাছে যেতে পারছি।

একটা সম্পর্কে সবরকম অনুভূতি ই হয়।ভালবাসার অনুভূতি সবচাইতে মধুর।

আসুন ভালবাসি। কোন শর্ত ছাড়াই।


সম্পর্কিত পোস্ট: