পেটের গ্যাসের যন্ত্রণাদায়ক সমস্যা উপশমের জন্য কয়েকটি পরামর্শ

How To Get Rid Of Stomach Gasপেটে গ্যাসের (stomach gas) সমস্যা খুব পরিচিত একটি শারীরিক সমস্যার নাম যার মুখোমুখি আমরা প্রায়ই হই। আজকাল বিভিন্ন ধরণের খাবার গ্রহণের ফলেও অনেক সময় আমাদের পেটে গ্যাস এর সমস্যায় দেখা যায়। এটি যে শুধু আপনাকে অস্বস্তিতে ফেলে তাই ই নয় বরং অন্ত্রের বদহজম জনিত এই সমস্যা আপনাকে শারীরিকভাবে যথেষ্ট নাজেহাল ও করে থাকে।

নানা ধরণের ওষুধ সেবন ও ঘন ঘন ডাক্তারের কাছে যাওয়া ছাড়াও আমরা ঘরোয়া ভাবে এই সমস্যার প্রতিকারে বেশ কিছু পদ্ধতি অবলম্বন করতে পারি। আসুন পেটে গ্যাস থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায় সম্পর্কে কিছু পরামর্শ প্রদান করা যাক।

  • শুয়ে পড়ুন (lie down): আপনি যদি পেটে গ্যাস এর জন্য অস্বস্তি বোধ করেন তাহলে মাথা উঁচু রেখে সোজা হয়ে শুয়ে পড়ুন। কিছুক্ষণ এভাবে থাকার পর দেখবেন আপনার পেটে গ্যাস এর অস্বস্তি চলে গেছে।
  • তরল খাবার খাওয়া বৃদ্ধি করুন (increase fluid intake): যখন পেটে গ্যাস আপানকে যন্ত্রণা দেবে দেরি না করে বেশী বেশী তরল খাবার খাওয়া শুরু করুন। কারণ তরল খাবার গ্রহণের ফলে আপনার হজম না হওয়া খাবার গুলো কোলন থেকে পরিপাকতন্ত্রের স্থানান্তরিত করতে সাহায্য করে। আপনি প্রচুর পানিও পান করতে পারেন।
  • কার্বনেটেড পানীয় (carbonated drinks): পেটে গ্যাস প্রতিরোধে কার্বনেটেডপানীয় পান করুন। এটি আপনার পেটে গ্যাস এর সমস্যা দূর করার সাথে সাথে পেটে গ্যাস এর জন্য আপনার বুকে সৃষ্টি হওয়া ব্যথাও দূর করে। তবে অতিরিক্ত কার্বনেটেড পানীয় যেমন কোক, পেপসি পান করা ভালো নয় মোটেও।
  • খাবারে সরিষা যোগ করুন (add mustard): সরিষা গ্যাস উপশম করতে সাহায্য করে। বিভিন্ন খাবারের সাথে সরিষা যোগ করা হয় যাতে সেইসব খাবার পেটে গ্যাস সৃষ্টি করতে না পারে।
  • আদা (Ginger): পেটে গ্যাস ও বদহজমজনিত সমস্যা সমাধানে আদা খুব উপকারী। খাবারে আদা যোগ করে বা কিছু পরিমাণ আদা চিবিয়ে রসটুকু গ্রহণ করলে পেটে গ্যাস প্রতিরোধ করা যায়।
  • ব্যায়াম করুন (increase exercises): পেটে গ্যাস থেকে মুক্তি পেতে আপনি ব্যায়াম করা শুরু করুন। প্রতিদিন ৩০ মিনিট ব্যায়াম করলে সহজেই পেটে গ্যাস থেকে মুক্তি পেতে পারেন।

পেটে গ্যাস থেকে মুক্তি পেতে উপরের পদ্ধতিগুলো অনুসরণ করুন আর সহজেই বদ হজম জনিত সমস্যা থেকে মুক্তি লাভ করুন।

পরামর্শ.কম এ স্বাস্থ্য ও রূপচর্চা বিভাগে প্রকাশিত লেখাগুলো সংশ্লিষ্ট লেখকের ব্যক্তিগত মতামত ও সাধারণ তথ্যের ভিত্তিতে লিখিত। তাই এসব লেখাকে সরাসরি চিকিৎসা বা স্বাস্থ্য অথবা রূপচর্চা বিষয়ক বিশেষজ্ঞ পরামর্শ হিসেবে গণ্য করা যাবে না। স্বাস্থ্য/ রূপচর্চা সংক্রান্ত যেকোন তথ্য কিংবা চিকিৎসার জন্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের/বিউটিশিয়ানের শরণাপন্ন হোন।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।