চোখে আইশ্যাডো ব্যবহারের সময় যে জিনিসগুলো অবশ্যই মনে রাখবেন

eyeshadowআপনি হয়তো চোখ সাজানো সম্পর্কিত অনেক ব্লগ পড়েছেন আর্টিকেল ঘেঁটেছেন। বিভিন্ন উপায়ও পেয়েছেন নিজের চোখটাকে সুন্দর করে সাজিয়ে তোলার। কিন্তু ঠিকঠাক সেগুলো কাজে লাগাতে না পারলে  আপনার হাজার চেষ্টা কোন কাজেই দেবেনা। চোখের সাজের মধ্যে অন্যতম হল চোখে আইশ্যাডো লাগানো। সুন্দর করে যদি চোখে আইশ্যাডো না লাগাতে পারেন তাহলে আপনার পুরো সাজটাই হয়ে যাবে বিদঘুটে। তাই চোখে শ্যাডো লাগানোর সময় কিছু কিছু বিষয় আপনাকে মাথায় রাখতে হয়।

চোখে আইশ্যাডো ব্যবহারের সময় যে জিনিসগুলো অবশ্যই মনে রাখবেনঃ

  • আইশ্যাডো লাগানোর আগে চোখ এবং মুখকে পুরো প্রস্তুত করে নিন। স্কিন প্রেপিং, কনসিলিং ও প্রাইমিং শেষে ফাউন্ডেশন ও ফেসপাউডার দিয়ে তৈরি করে নিন ত্বকের বেইজ মেকআপ।
  • শত শত শ্যাডোর মধ্য থেকে আপনার চোখের জন্য উপযুক্ত রং খুঁজে পাওয়া সহজ কথা নয়। সেক্ষেত্রে চোখের আকার, রুচি, পোশাকের ধরণ ও রং, সাজের ধরন এবং আপনার ব্যক্তিত্ব আর স্বাচ্ছন্দ্য অনুযায়ী বেছে নিন শ্যাডো।
  • সালোয়ার-কামিজের সঙ্গে হালকা রং যেমন গোলাপি, হালকা নীল, সোনালি, হালকা সবুজের যেকোনো শেড। ওয়েস্টার্ন পোশাকের সঙ্গে চোখে মোটা করে কাজল বা স্মোকি আই সবচেয়ে মানানসই।
  • দিনের বেলা ব্যবহারের জন্য সংগ্রহে রাখতে পারেন বাদামি, ছাই (এশ), মভ, পিচের মতো আর্থ বা বেইজ টোনের রঙগুলো। আর রাতে ব্যবহারের জন্য অরেঞ্জ বা কমলা, বেগুনি, লাল, হলুদ, সবুজ, নীল, ডিপ ম্যাজেন্টা রঙগুলো থাকা চাই বিউটি বক্সে।
  • আইশ্যাডো বাছায়ের জন্য আপনাকে অবশ্যই আপনার গায়ের রঙের দিকে নজর রাখতে হবে। যাদের গায়ের রং ফর্সা তারা দিয়ে হালকা আর রাতে গাড় শেড ব্যবহার করুন, আর যাদের গায়ের রং শ্যামলা তারা সোনালি, সিলভার, গাঢ়, বেগুনি, বারগ্যান্ডি, বাদামি, পিচ, মভ ইত্যাদি।
  • চোখের আকারের সাথে সাথে আবার আইশ্যাডো লাগানোর ধরণে আসে বৈচিত্র্য। যেমন যাদের দু’চোখের দূরত্ব কম তারা নাকের কাছাকাছি থেকে চোখের ভেতরের দিকে শ্যাডো ব্যবহার করুন।অন্যদিকে যাদের চোখের দূরত্ব বেশি, তারা চোখের ভেতরের অর্ধেক অংশজুড়ে মাঝারি থেকে গাঢ় টোনের যেকোনো রঙের শ্যাডো লাগান। ছোট চোখে হালকা রঙা আইশ্যাডোগুলো ভালো দেখায়।
  • শ্যাডো লাগানোর ক্ষেত্রে স্পঞ্জ বা ব্রাশ অ্যাপ্লিকেটর ব্যবহার করতে পারেন। আঙুল দিয়েও কাজ সেরে নেয়া যাবে। পছন্দমতো আইশ্যাডো নিয়ে আইল্যাশের কিনারা থেকে চোখের পাতার উপরের ভাঁজ পর্যন্ত লাগিয়ে নিন।
  • শ্যাডো লাগানোর ব্রাশ বা স্পঞ্জ বহুব্যবহৃত বা পুরনো হলে সেটি ব্যবহার করবেন না। এতে করে চোখের ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে এবং আপনার আইশ্যাডো কাজে বিঘ্ন ঘটাতে পারে।
  • চোখে শেড দেওয়ার সময় নজর রাখবেন যাতে এগুলো চোখের অভ্যন্তরে না যেতে পারে। অনেক সময় শ্যাডো চোখে যাওয়ায় চোখে ইনফেকশন হতে পারে এবং চোখে ব্যাথা শুরু হতে পারে।

চোখ মুখের সৌন্দর্য বাড়াতে অনেক বড় অবদান রাখে। সুন্দর আর সাবলীল চোখের সাজ আপনাকে সহজে আবেদনময়ী করে তোলে। তাই তাড়াহুড়ো না করে একটু সময় নিয়ে আপনার চোখটাকে সাজিয়ে তুলুন।

পরামর্শ.কম এ স্বাস্থ্য ও রূপচর্চা বিভাগে প্রকাশিত লেখাগুলো সংশ্লিষ্ট লেখকের ব্যক্তিগত মতামত ও সাধারণ তথ্যের ভিত্তিতে লিখিত। তাই এসব লেখাকে সরাসরি চিকিৎসা বা স্বাস্থ্য অথবা রূপচর্চা বিষয়ক বিশেষজ্ঞ পরামর্শ হিসেবে গণ্য করা যাবে না। স্বাস্থ্য/ রূপচর্চা সংক্রান্ত যেকোন তথ্য কিংবা চিকিৎসার জন্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের/বিউটিশিয়ানের শরণাপন্ন হোন।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।