যে ৩ টি খাদ্যাভ্যাস আপনার ওজন বাড়াতে সাহায্য করবে

weight gainযেখানে আমরা সবাই ছুটছি কিভাবে নিজেদের শরীর থেকে অতিরিক্ত মেদ আর চর্বি কমিয়ে (weight loss) ফেলা যায় সেখানে অনেকেই নিজেদের রোগাপটকা শরীরটাকে একটু মোটা করতে ,একটু স্বাস্থ্য অর্জন করতে হাহুতাশ করে ফেরে। সেইসব মানুষগুলোর জন্য সুখবর। আসুন জেনে নিন যে ৩ টি খাদ্যাভ্যাস আপনাকে মুটিয়ে তুলতে (weight gain) সাহায্য করবে।

১) রাতে ঠিক ঘুমাতে যাওয়ার আগে খাওয়া(dinner just before sleep)

স্বাস্থ্যবান হতে আপনার প্রথম করণীয় হবে রাতের খাবারটা ঠিক ঘুমাতে যাওয়ার আগে খাওয়া। ঘুম আপনার বিপাক প্রক্রিয়া, আপনার রক্তে শর্করার মাত্রা ও আপনার শরীরে হরমোনের পরিমাণ সঠিক রাখে। যা আপনাকে সুস্বাস্থ্য অর্জনে সাহায্য করবে।

২) খাবার একা খেতে না বসে পরিবারের সাথে বসুন(eat with your family)

সাধারণভাবে একা খেতে বসলে খাওয়ায় মনোযোগ কম থাকে, তাই যদি স্বাস্থ্যবান হতে চান অন্তত দিনে তিনবার খাওয়ার সময় পরিবারের সবার সাথে খেতে বসুন। স্বাভাবিকভাবেই যখন একসাথে অনেক মানুষ খেতে বসে তখন গল্প আড্ডায় খাওয়ার সময়টুকু উপভোগ্য হয়ে উঠে। আর একই সাথে খাবার গ্রহণের পরিমাণটাও বেড়ে যায়। স্বাস্থ্য অর্জনের জন্য বেশী বেশী খাবার গ্রহণের বিকল্প নেই।

৩) খেতে বসে সাথে অন্যান্য কাজ করা(multi-task during taking meal)

খেতে বসে আপনি প্লেটে কতটুকু খাবার অবশিষ্ট থাকল এটা ভেবে সময় নষ্ট না করে বরং আপনার মোবাইলটা নিয়ে ঘাঁটাঘাঁটি করুন, পিসি চালিয়ে কোন মুভি ছেড়ে দিন অথবা কাউকে সামনে বসিয়ে তার সাথে গল্প চালিয়ে যান। কখন আপনি বেশী খেয়ে ফেলবেন বুঝতেই পারবেন না। এই পরামর্শ তাদের জন্য যারা খেতে অপছন্দ করেন কিন্তু একটু ওজন বাড়াতে চান। এই পদ্ধতি আপনার খাওয়ার সময়টি ছোট করে তুলবে।

আপনি যদি ওজন বৃদ্ধি (weight) করতে চান তাহলে কফি, কোমল পানীয়, মিষ্টি এই জাতীয় খাবারগুলো একটু মনোযোগ দিয়ে খেতে থাকুন। দেখবেন কয়েক সপ্তাহর মধ্যে আপনার শরীর বেশ খানিকটা ওজন প্রাপ্তি করছে। তবে হ্যাঁ, অতিরিক্ত ওজন কিন্তু ভালো নয় মোটেও।

পরামর্শ.কম এ স্বাস্থ্য ও রূপচর্চা বিভাগে প্রকাশিত লেখাগুলো সংশ্লিষ্ট লেখকের ব্যক্তিগত মতামত ও সাধারণ তথ্যের ভিত্তিতে লিখিত। তাই এসব লেখাকে সরাসরি চিকিৎসা বা স্বাস্থ্য অথবা রূপচর্চা বিষয়ক বিশেষজ্ঞ পরামর্শ হিসেবে গণ্য করা যাবে না। স্বাস্থ্য/ রূপচর্চা সংক্রান্ত যেকোন তথ্য কিংবা চিকিৎসার জন্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের/বিউটিশিয়ানের শরণাপন্ন হোন।
লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।