আপনার ছোট্ট সোনামণির জন্য স্কুলে বন্ধু বানাতে সাহায্য করতে যা করবেন

friendship

এতদিনে আপনার ছোট্ট সোনামণি পারিবারিক পরিমণ্ডলে নিজের আপনজনদের সাথে মেলামেশাতে অভ্যস্ত ছিল।

কিন্তু যখনই সে স্কুলে যেতে শুরু করে তার জন্য স্কুলের সম্পূর্ণ নতুন পরিবেশে অচেনা পরিমণ্ডলে নিজেকে মানিয়ে নেওয়া একটু কষ্টকর হয়ে দাঁড়ায়।

আপনার সন্তান বাইরের জগতের সাথে নিজেকে মানিয়ে নেওয়ার শিক্ষা পরিবারে থেকে আপনার কাছেই লাভ করতে সক্ষম।

এর জন্য যা করতে হবে তা হল একজন বাবা বা মা হিসেবে আপনাকে আপনার সন্তানকে শেখাতে হবে কি করে স্কুলে খুব সহজে নিজেকে মানিয়ে নেবে আর কি করেই বা স্কুলে খুব দ্রুত বন্ধু পাতিয়ে নিতে হবে।

আসুন আজ আপনাদের জানাবো কি করে আপনার ছোট্ট সোনামণিকে স্কুলে নতুন বন্ধু বানাতে আপনি সাহায্য করবেন।

*সবার আগে আপনার বাচ্চাকে প্রথম পরিচয়ে কিভাবে অন্য আরেকজন বাচ্চার সাথে কথোপকথন করতে হবে সেটা শেখান।

সহজ করে বলতে গেলে আপনার বাচ্চাকে শিখান কিভাবে অন্য আরেকটা বাচ্চাকে “হ্যালো” বলতে।

সবচেয়ে ভালো হয় যদি আপনি বাড়িতেই তাকে এই ব্যাপারে তালিম দিতে পারেন। এতে করে স্কুলে যেকোন বাচ্চার সাথে নিজেকে সহজে মানিয়ে নিতে পারবে সে।

*আপনার বাচ্চা যদি একটু লাজুক ধরণের হয় তাহলে ভুলেও তার এই লাজুক স্বভাবকে তার দুর্বলতা হিসেবে মূল্যায়ন করবেন না।


আরো পড়ুনস্কুলে যাওয়ার আগে যে ৫টি বিষয় আপনার সন্তানকে অবশ্যই শেখাবেন


বরং তার এই লাজুক স্বভাবের ইতিবাচক দিকগুলো তুলে ধরে তাকে উৎসাহ দিন আর বুঝিয়ে বলুন কিভাবে সে সহজেই স্কুলে নতুন বন্ধু বানিয়ে ফেলতে পারে।

*আপনার ছোট্ট সোনামণিকে স্কুলে ভর্তি করার আগে ভাগেই শিখিয়ে দিন কী করে নিজের সম্পর্কে অন্যর সাথে আলোচনা করতে হয়।

এক কথায় আপনার বাচ্চাকে আত্মবিশ্বাসী হতে শেখান। শেখান কিভাবে সে নিজেকে উপস্থাপন করবে। আপনার বাচ্চার আত্মবিশ্বাসীভাবে নিজেকে উপস্থাপনের দক্ষতা স্কুলে তাকে দ্রুত বন্ধু পেতে সাহায্য করবে।

*আপনার বাচ্চাকে পারিবারিক গণ্ডী থেকেই বাস্তববাদী হতে শিক্ষা দিন।

মনে রাখবেন আপনার বাচ্চার স্বভাব যেমন হোক ছোটবেলা থেকে আপনি যদি তাকে সঠিকভাবে পরিচালনা করতে পারেন তাহলে সে তেমনটিই হবে যেমনটি আপনি চান।

আর আপনি যদি তাকে ছোটবেলা থেকেই অতিআবেগ বা কল্পনা বিলাসী  না হতে দিয়ে বাস্তববাদী হিসবে গড়ে তলতে পারেন তাহলে স্কুলের অন্যান্য বাচ্চাদের নজর কাড়তে আর তাদের বন্ধুতে রূপান্তর করতে তার সময় লাবে না।

*আপনার বাচ্চাকে প্রথম থেকেই এই মন্ত্রে বিশ্বাসী করে তুলুন যে যেকোন পরিস্থিতে নিজেকে খাপ খাইয়ে নিতে বা কোন নতুন জায়গায় বন্ধু বানাতে সাহায্য করার মানসিকতার বিকল্প হয়না।


আরো পড়ুনশিক্ষার্থীরা স্কুলের চাপ মোকাবেলা করবেন যেভাবে


তাই যখনই আপনার বাচ্চা স্কুলের বিশাল গণ্ডিতে প্রবেশ করবে তাকে বুঝিয়ে বলুন সেখানে নতুন বন্ধু পেতে হলে তাকে অন্যকে সাহায্য করতে শিখতে হবে।

প্রতিদিন যখন আপনার ছোট্ট সোনামণি স্কুল থেকে বাড়ি ফিরবে তার কাছথেকে স্কুলের অভিজ্ঞতা নিয়ে আগ্রহ সহকারে জানতে চান।

তার সাথে কি ঘটলো, নতু কার কার সাথে তার পরিচয় হল, ক্লাসের পড়া কেমন ছিল সবটা নিয়ে খোঁজ খবর নিন। আর কেবল এভাবেই আপনি আপার বাচ্চাকে স্কুলে বন্ধু বানানোতে সাহায্য করতে পারবেন।


সম্পর্কিত পোস্ট: