জানুন গর্ভাবস্থায় বিষণ্ণতায় ভোগার লক্ষণগুলো, কাটিয়ে উঠুন বিষণ্ণতা

200278805-001এক গবেষণায় দেখা গেছে যে, প্রায় ৩৩ শতাংশ নারীরাই গর্ভাবস্থায় বিষণ্ণতায় (depression during pregnancy) ভুগে থাকেন। এর বেশীরভাগই কোনরূপ চিকিৎসা বা সঠিক দেখাশোনা ছাড়াই সন্তান জন্ম দেন। যার ফলাফলে প্রভাব পড়ে সদ্য জন্ম নেওয়া নবজাতকটির উপর। বিষণ্ণতা বা মানসিক অস্থিরতায় ভোগা মায়ের সন্তান পরবর্তীতে নানা ধরণের মানসিক সমস্যার সম্মুখীন হয়, তাই প্রথম থেকেই গর্ভবতী নারীর বিষণ্ণতায় ভোগার লক্ষণ শনাক্ত করে তার প্রতিকারে সঠিক পদক্ষেপ গ্রহণ করা উচিত।

গর্ভাবস্থায় বিষণ্ণতায় ভোগার লক্ষণগুলো জেনে নিন (symptoms)

  •  একটানা অন্তত দুই সপ্তাহের বেশী সময় ধরে বিষণ্ণ মেজাজে থাকা।
  • যে কোন কিছু করার জন্য আগ্রহ লোপ পাওয়া।
  • খুব পছন্দের কোন কাজ বা ঘটনাতেও আনন্দ লাভ না করা।
  • অপরাধ বোধে ভোগা।
  •  কাজে অনীহা।
  • ক্ষুধা মন্দা ও দুর্বলতা অনুভব করা।
  • খুব বেশী ঘুম অথবা সম্পূর্ণ ঘুমহীন অবস্থার মধ্যে দিয়ে যাওয়া।

গর্ভাবস্থায় বিষণ্ণতা থেকে নিজেকে দূরে রাখবেন যে উপায়ে (coping with anxiety and depression)

  • একটানা বসে না থেকে পরিবারের ছোট খাটো দায়িত্ব নিজের হাতে তুলে নিতে পারেন, কম পরিশ্রমের কাজগুলো করতে পারেন যেমন নিজে রান্না না করে রান্নাঘরে কি রান্না হবে আর কোনটা হবে না সেটা ঠিক করে দিতে পারেন। এতে করে আপনার মন এক জায়গায় কেন্দ্রীভূত হবে না।
  •  সময় মতো খাবার গ্রহণ করুন আর নজর রাখুন যাতে খাবার তালিকাটি যেন একটি সুষম খাদ্য তালিকা হয়। খাবার পর্যাপ্ত আর ভালো পুষ্টিমানের না হলে আপনি এমনিতেই শারীরিকভাবে দুর্বল হয়ে পড়বেন। আর এই দুর্বলতা আস্তে আস্তে আপনাকে বিষণ্ণতার দিকে টেনে নিয়ে যাবে।
  • গর্ভাবস্থায় পরিবারের বাড়তি দায়িত্ব নেওয়া থেকে বিরত থাকুন। এই সময়টায় আপনি স্বাভাবিকভাবেই শারীরিক ও মানসিকভাবে বেশ জটিল একটা প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যান। ফলে যে কোন ধরণের কাজ আপনাকে দ্রুত ক্লান্ত করে তোলে। দেখা যাবে বাড়তি কাজের দায়িত্ব আপনি সঠিকভাবে পালন করতে পারবেন না আর এর ফলে বিষণ্ণতায় ভুগবেন।
  • একজন নারীর গর্ভাবস্থায় তাকে বিষণ্ণতা থেকে দূরে রাখতে পরিবারের মানুষগুলোর দায়িত্ব বাড়ির পরিবেশ শান্ত রাখা, এমন কোন পরিস্থিতি বা আলোচনা সন্তান সম্ভবা মায়ের সামনে করা উচিৎ নয় যাতে করে তিনি বিষণ্ণতা বা মানসিক অস্থিরতায় ভোগেন।
  • গর্ভাবস্থায় একজন নারীর সবচেয়ে ভালো আর কাছের মানুষের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয় তার জীবন সঙ্গী। তাই গর্ভাবস্থায় তাকে সুস্থ ও খুশী রাখতে আপনাকে তার মধ্যে ইতিবাচক চিন্তা চেতনার বিকাশ ঘটাতে হবে। তাকে হাসি খুশী রাখতে কোথাও বেড়াতে নিয়ে যেতে পারেন অথবা পরিবারে যে নতুন সদস্য আসছে তাকে নিয়ে আগামী দিনের পরিকল্পনা করতে পারেন। এতো কিছুর ভিড়ে দেখবেন সে আর বিষণ্ণ হওয়ার সুযোগই পাচ্ছে না।

সুস্থ মাতৃত্ব সব নারীর অধিকার। আর সন্তান ধারণ থেকে জন্মদানের আগ পর্যন্ত যদি মায়ের সুষ্ঠু ও স্বাভাবিক জীবন যাপন নিশ্চিত না করা যায় তাহলে কখনোই সেই মায়ের কাছে থেকে একটি সুস্থ নবজাতকের আশা করা যায় না।

আরো পড়তে পারেন এই লিঙ্কে

এছাড়া পড়ুন
জেনে নিন গর্ভাবস্থায় মায়ের জন্য প্রয়োজনীয় পাঁচ যত্ন সম্পর্কে

পরামর্শ.কম এ স্বাস্থ্য ও রূপচর্চা বিভাগে প্রকাশিত লেখাগুলো সংশ্লিষ্ট লেখকের ব্যক্তিগত মতামত ও সাধারণ তথ্যের ভিত্তিতে লিখিত। তাই এসব লেখাকে সরাসরি চিকিৎসা বা স্বাস্থ্য অথবা রূপচর্চা বিষয়ক বিশেষজ্ঞ পরামর্শ হিসেবে গণ্য করা যাবে না। স্বাস্থ্য/ রূপচর্চা সংক্রান্ত যেকোন তথ্য কিংবা চিকিৎসার জন্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের/বিউটিশিয়ানের শরণাপন্ন হোন।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।