শিক্ষার্থীরা স্কুলের চাপ মোকাবেলা করবেন যেভাবে

stressআমরা সাধারণত সবচেয়ে বেশি স্মৃতি চারণ করি স্কুল জীবন নিয়ে। জীবনের কোন একটি পর্যায়ে গিয়ে মনে হয়, আসলে স্কুল জীবনই সবচেয়ে ভাল ছিল। কিন্তু আপনি নিজে স্কুল এ পড়ার সময় কখনোই কি মনে এই চিন্তাটা আসেনি যে, কবে বড় হব? কবে এই চাপ থেকে মুক্তি পাবো? এই চিন্তা মাথায় আসার প্রধান কারণ স্কুলের অতিরিক্ত চাপ (school stress)। এ সময় অনেক বেশি ব্যস্ত থাকতে হয় ছাত্র-ছাত্রীদের। এই চাপ থেকে আসলে মুক্তি নেই, তবে কিছু পদ্ধতি আছে যা অনুসরণ করলে এর সাথে সহজেই নিজেকে মানিয়ে নেয়া যায় (coping with stress)

১. রুটিন অনুসরণ করুন (keep a routine)

প্রতিদিনের ক্লাস, টিউটরের কাছে পড়া, বাড়ির কাজ, খেলার সময়, পড়ার সময় সব রুটিনে সাজিয়ে নিন। এতে করে সময়ের কাজ সময়ে শেষ হবে, আর দেখা যাবে এলোমেলোভাবে কাজ করার চেয়ে রুটিন অনুসরণ করায় বেশ কিছু বাড়তি সময় হাতে থেকে যাচ্ছে। যা নিজের ইচ্ছামত ব্যয় করা যাবে।

২. পর্যাপ্ত পরিমাণ ঘুমান (get enough sleep)

একজন ছাত্রের জন্য কমপক্ষে ৭-৯ ঘণ্টা ঘুম অপরিহার্য। প্রতিদিন নির্দিষ্ট সময়ে ঘুমানো এবং ঘুম থেকে উঠার অভ্যাস করুন। আর ছুটির দিনগুলোতে একটু বেশি ঘুমিয়ে নিন। এতে স্কুল চলাকালীন দিনগুলোতে মন সতেজ থাকবে (dealing with stress)

৩. নিয়মিত ব্যায়াম এবং খেলাধুলা করুন (play and exercise regularly)

স্কুলের ছাত্রদের ভারী ব্যায়াম করা উচিত নয়। প্রতিদিন ৩০ মিনিটের মত ফ্রি হ্যান্ড ব্যায়ামই যথেষ্ট। এছাড়া দৌড়ানো আর খেলাধুলা করতে হবে নিয়মিত। এতে স্বাস্থ্য আর মন দুটোই ভাল থাকবে। কম্পিউটার এবং মোবাইলের গেমস ছেড়ে বাসার বাইরে খোলা মাঠে খেলাধুলার অভ্যাস করুন।

৪. সময় রাখুন বিনোদনের জন্য (try to relax)

দিনের একটি নির্দিষ্ট সময় রাখুন বিনোদনের জন্য। সব সময় পড়া, কোচিং, টিউটর এসবের ভেতর ডুবে থাকলে খুব অল্প সময়েই বিরক্ত এবং হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়বেন (stress and anxiety)। বিনোদনের জন্য আলাদা করে রাখা সময়টিতে গান শুনতে পারেন, টিভিতে দেখতে পারেন প্রিয় কোন অনুষ্ঠান।

৫. বন্ধুদের সাথে সময় কাটান ( have fun with friends)

স্কুলে থাকাকালীন সময়ে এবং বাসায় অবসরের সময়গুলো কাটান বন্ধুদের সাথে। কারণ এই সময়েই মানুষের এমন কিছু বন্ধু তৈরি হয় যাদের পরবর্তী জীবনে সবসময়ই পাশে পাবেন। এছাড়া পড়াশোনা আর বিভিন্ন কাজেও সাহায্য করবে এই বন্ধুরা।

পড়াশোনা নিয়ে পরামর্শ.কম এ প্রকাশিত আরো লেখা পড়ুন

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।