নিজেকে করে তুলতে চান আরো স্মার্ট? থাকলো কিছু পরামর্শ

smartআপনি কেবল একটি সুযোগই পাবেন প্রথম দেখাতেই কোথাও নিজেকে স্মার্ট হিসেবে প্রমাণ করার। যাকে এক কথায় বলে “first impression”। আপনি যদি কোথাও প্রবেশ করার শুরুতেই এলোমেলো বা হেলেদুলে প্রবেশ করেন তবে আপনি প্রথমে সবার চোখে যে আনস্মার্ট বা তথাকথিত খ্যাত হিসেবে প্রতীয়মান হবেন সেটি সম্ভবত আর কখনোই কাটিয়ে উঠতে পারবেন না আর যদি কাটিয়ে উঠতে চানও তবে আপনাকে এক কথায় অসাধ্য সাধন করতে হবে। তাই অন্যের সামনে নিজেকে স্মার্টলি প্রকাশ করা সম্পর্কে আপনার জ্ঞান থাকা খুব দরকারি।

যেভাবে নিজেকে স্মার্ট হিসেবে তুলে ধরবেনঃ

• নিজেকে স্মার্ট হিসেবে তুলে ধরার প্রথম শর্ত হল যখনই আপনি হাঁটবেন কোন দিকে বেশী হেলে অথবা খুব বেশী দুলে দুলে না হেঁটে সোজা হয়ে হাঁটুন। পিঠ ও ঘাড় টান টান রেখে দৃষ্টি সামনে প্রসারিত করুন। আপনার হাঁটার ধরণ আপনার আত্মবিশ্বাস ও আপনার স্মার্টনেস প্রকাশ করবে।

• কখনোই এমন কোন পোশাক পরবেন না যেটাতে আপনি নিজে স্বস্তি অনুভব করেন না। পোশাক সেটা যেমনই হোক সেটা যেন আপনাকে স্বস্তি প্রদান করে, তাছাড়া আপনি অস্বস্তিদায়ক পোশাক পরে কখনোই নিজেকে স্মার্টলি তুলে ধরতে পারবেন না।

• পোশাক সেটা নতুন বা পুরাতন যেমনই হোক কথা হল সেটা অবশ্যই পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন হতে হবে। আপনার বহুল ব্যবহৃত শার্টটিও স্মার্ট দেখাতে সাহায্য করবে যদি সেটি পরিষ্কার আর পরিপাটি হয়। আর আপনার হাল ফ্যাশনের নতুন শার্টটিও আপনাকে স্মার্ট হিসেবে প্রকাশ করতে পারবেনা যদি সেটি অপরিষ্কার আর এলোমেলো হয়।

• নিজের পোশাক আশাকের সাথে সাথে নিজের শরীরের পরিচ্ছন্নতার দিকেও সতর্ক দৃষ্টি রাখুন। যতোটা সম্ভব নিজেকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন ও গুছিয়ে রাখুন। খেয়াল রাখুন আপনার হাতের নখগুলো যেন খুব বেশী বড় না হতে পারে, চুলগুলো পরিষ্কার রাখুন আর বাইরে বের হওয়ার আগে নিশ্চিত হয়ে নিন যেন আপনার চেহারা ও সার্বিক দিক একদম গোছানো অবস্থায় আছে কিনা।

• নিজেকে স্মার্ট হিসেবে তুলে ধরার আরো একটি ভালো মাধ্যম হলো আপনার বাচনভঙ্গী। কথা বলার সময় জড়িয়ে কথা বলা বর্জন করুন, খুব দ্রুত কথা না বলে প্রতিটি কথার মাঝখানে কিছুটা সময়ের ব্যবধান রাখুন, শুদ্ধ ভাষায় কথা বলার চেষ্টা করুন, কথায় কথায় ইংরেজি না বলে সীমিত কিছু ইংরেজি শব্দ ব্যবহারের চেষ্টা করুন।

• স্মার্ট হিসেবে নিজেকে উপস্থাপন করতে গিয়ে সব কথার মধ্যে কথা বলতে যাবেন না। বিশেষ করে যে বিষয়ে আপনার কোন ধারণা নেই সেসব আলোচনায় সরাসরি অংশগ্রহণ থেকে বিরত থাকুন। প্রয়োজনে অজানা বিষয়ে প্রশ্ন করতে পারেন।

• মুখটা খুব বেশী গম্ভীর বা ভাব গাম্ভীর্যে ভরপুর না রেখে মুখে আলতো একটি হাসি রাখুন, এটি আপনার বন্ধুত্বপূর্ণ স্বভাবের প্রকাশ ঘটাবে। যদি কখনো অপ্রীতিকর অবস্থার সম্মুখীন হন তাহলে কিম্ভূতকিমাকার না হয়ে মৃদু হেসে পরিস্থিতি সামাল দিন। আপনার স্মার্টনেস প্রকাশের এইটি আরো একটি মাধ্যম।

• নিজেকে স্মার্ট করতে গিয়ে আপনি যা নন তা করবেন না। নিজের আসল সত্ত্বাকে উপেক্ষা করবেন না, মনে রাখবেন মেকি কোন কিছুই দীর্ঘস্থায়ী হয়না। তাই আপনি যা সেভাবেই নিজেকে সাজিয়ে গুছিয়ে স্মার্ট করে উপস্থাপন করুন।

নিজেকে স্মার্ট করে তুলতে যতবেশি পারেন স্মার্ট লোকজনের সাথে মেলামেশা করুন। স্মার্টনেস (smartnes) মানে এই নয় আপনি স্বয়ংসম্পূর্ণ, প্রয়োজনে অন্যের সাহায্য নিন আর অন্যের প্রয়োজনে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিন।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।