যে ৭ টি উপায়ে নারীরা সহজেই হয়ে উঠতে পারেন স্বাবলম্বী

নারীদের আত্মকর্মসংস্থান

নারীদের আত্মকর্মসংস্থানকথায় আছে “যে রাঁধে সে চুলও বাঁধে।” বর্তমান সময়ে নারীরা শুধু মাত্র নিজেদের ঘরবাড়ি আর সংসার সামলাতে তাদের পুরো জীবনটা শেষ করে দেবে এমনটা আর ভাবেন না। এখন নারীরাও তাদের সংসার সামলানোর পাশাপাশি ঘরে বসে নিজেদের আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী করে তুলতে চান। কেবল মাত্র চাকরী করে নিজেকে স্বাবলম্বী করে তোলা বর্তমান সময়ে অনেকটাই কঠিন হয়ে পড়েছে। আসুন ঘরে বসে নারীদের কর্মসংস্থান সম্পর্কিত কিছু পরামর্শ জেনে নেওয়া যাক।

নারীর আত্ম-কর্মসংস্থান সম্পর্কিত কিছু পরামর্শঃ

ওয়েবসাইট কনটেন্ট রাইটারঃ
ওয়েবসাইট কন্টেন্ট লিখার মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করা একটি দুর্দান্ত উপায় হতে পারে। বর্তমানে দেশীয় এবং বিদেশী অনেক প্রতিষ্ঠানে ওয়েবসাইট কনটেন্ট রাইটার কর্মক্ষেত্র তৈরি হচ্ছে। আর আপনার ভেতর যদি লিখালিখির সৃজনশীলতা থাকে তাহলে আপনি ঘরে বসে সৃজনশীল লেখার মাধ্যমে আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হতে পারেন। আপনার তথ্যবহুল লেখনীর মাধ্যমে আপনি সহজেই অর্থ উপার্জনের সাথে সাথে নিজের একটি সুন্দর ভাবমূর্তি স্থাপন করতে পারবেন।

ব্লগারঃ
নিজের সাথে ঘটে যাওয়া ঘটনা, অভিজ্ঞতা ও ধারনা নিয়ে আপনি ব্লগিং করা শুরু করতে পারেন। বর্তমানে ব্লগিং এর মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করা যায়। তবে এ ক্ষেত্রে আপনাকে সঠিকভাবে অর্থ উপার্জনের উদ্দেশ্যে ব্লগিং করার নিয়ম জেনে নিতে হবে। এটি এমন একটি কাজ যা আপনি আপনার নিজের ইচ্ছেমত সময়ে করতে পারেন। আপনার মননশীল ব্লগিং এর মাধ্যমে অবিশ্বাস্যভাবে মানুষের সাড়া পেতে পারেন।

ইভেন্ট পরিকল্পনাকারীঃ
নেতৃত্ব দিয়ে নিজের পরিকল্পনায় কাজ করতে ভালোবাসেন? তাহলে ইভেন্ট পরিকল্পনা করা হতে পারে আপনার জন্য সঠিক কর্মসংস্থান। নিজের পরিকল্পনা দিয়ে অন্যদের নিখুঁত ইভেন্ট তৈরি করতে সাহায্য করুন। এই সেক্টরে ব্যবসা এবং কর্পোরেট ইভেন্ট পরিকল্পনার মাধ্যমে ভালো অর্থ আয় করা যেতে পারে। নিজের একটি ভালো কাজের নেটওয়ার্ক নিশ্চিত করুন দেখবেন হাতে কাজের অভাব হবেনা।

ভার্চুয়াল সহকারীঃ
যেকোন কাজেই সহকারী প্রয়োজন হয়। এক্ষেত্রে ভার্চুয়াল সহকারী হিসেবে সহজেই আপনার কাজ জানা সেক্টরে কাজ করতে পারেন। ধরা যাক আপনি কারো ইমেইল আদান প্রদানের কাজ করলেন অথবা ভ্রমণ রিজার্ভেশন সামলাচ্ছেন। এই কাজের বড় সুবিধা হল আপনি ঘরে বসে নির্দিষ্ট সময়ে করতে পারছেন। এতে কোন অফিস এর দরকার হয় না বা বাইরে গিয়ে কাজ করতে হয় না। আপনার ঘরের সুবিধাজনক একটা স্থানে বসে আপনার ইচ্ছেমত ক্লায়েন্টদের সাথে কাজ করতে পারবেন।

অনলাইন কোর্স
অনলাইন কোর্স গত কয়েক বছরে অবিশ্বাস্যভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। এখন আপনি চাইলেই আপনার শিক্ষাকে কাজে লাগিয়ে ঘরে বসে উপার্জন করতে পারেন। আপনি আপনার লেকচার ভিডিও বার্তার অথবা টিউটোরিয়াল ওয়েবসাইট এর মাধ্যমে প্রকাশ করে সহজেই অনলাইন কোর্স চালু করে এর কাঙ্ক্ষিত শ্রেণীর কাছে পৌছে দিতে পারেন।

অনলাইন ষ্টোরঃ
একজন নারীর ঘরে বসে স্বাবলম্বী হয়ে উঠার পথে সব থেকে বেশী সহায়তা করবে অনলাইন ষ্টোর বা ই-কমার্স ওয়েবসাইট। একটি ই-কমার্স ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আপনি আপনার অনলাইনে জিনিসপত্র বিক্রি করতে পারেন। আপনি বিভিন্ন রান্নাঘরের সামগ্রী,বই,পোশাক,প্রসাধনী এমনকি আপনার নিজের বানানো জিনিস ও এখানে বিক্রি করতে পারেন।

হস্তশিল্প (ক্র্যাফট) ব্যবসাঃ
নারীদের আত্ম কর্মসংস্থানের জন্য হস্তশিল্প বা ক্রাফটিং সবসময় একটি গুরুত্বপূর্ণ উৎস হিসেবে বিবেচিত হতে পারে হয়ে আসছে। আপনার হস্তশিল্পের পণ্যসমূহ স্থানীয় বাজার এবং পরিচিতজনদের পাশাপাশি এখন অনলাইনেও বিক্রি করতে পারেন। এছাড়া আপনি কারুশিল্পের নির্দিষ্ট বিষয় নিয়ে প্রশিক্ষণ করাতে পারেন অনলাইনে।

ইন্টেরিওর ডিজাইনারঃ
আমরা চাই আমাদের চারপাশের পৃথিবীটা আর সুন্দর করে সাজাতে। সেটা আমাদের নিজ বসবাস এর ঘর দিয়েও শুরু করতে পারি। আর এক্ষেত্রে নারীদের কদর এই আলাদা। মেয়েরা ঘর সাজাতে পারদর্শী। একটি ওয়েবসাইট এর মাধ্যমে ঘর বা বাসস্থান সাজানোর আইডিয়া দিয়ে অন্যদের সাহায্য করতে পারেন। এর পাশাপাশি আপনার ইন্টেরিওর ডিজাইনা সেবা সম্পর্কে ও জানাতে ভুলবেন না। আর এভাবেই নিজের ইন্টেরিওর ডিজাইন ব্যবসা দাঁড় করাতে পারেন।

নারীদের আত্ম-কর্মসংস্থানের বিভিন্ন পথ আমাদের চারপাশেই ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে। যেকোন একটা পথ দিয়ে কেবল চলা শুরু করতে হবে। নিজেদের আত্মবিশ্বাস ধরে রেখে কাজ করে গেলে সাফল্য আসবেই।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।