যে ৭ টি কারণে আপনি খেতে পারেন ডাবের পানি

coconut-waterডাবের পানি। তৃষ্ণা নিবারক এই বিশুদ্ধ তরলে অনেক পুষ্টিকর উপাদান রয়েছে, যা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। তাহলে চলুন, দেখে নেয়া যাক যে ৭ টি কারনে ডাবের পানি খেতে হবে।

১. ওজন কমাতে সাহায্যকারী : আমরা অনেকেই ওজন নিয়ে চিন্তায় আছি যে কিভাবে কমানো যাবে! ব্যায়াম, দৌড়াদৌড়ি, জিমে যাওয়া, ডায়েট কন্ট্রোল- আরও নানান কিছু। ডাবের পানি হচ্ছে ওজন কমানোর প্রাকৃতিক উপায়। এই পানিতে ফ্যাট খুবই কম, বরং এমন কিছু উপাদান রয়েছে, যা শরীরের চর্বি শুষে নেয় এবং একই সাথে পুষ্টিকর উপাদানে দেহ ভরিয়ে তোলে।

২. উচ্চ রক্তচাপ কমায় : উচ্চ রক্তচাপ নিরসনে ডাবের পানি এককথায় অসাধারণ। বিশেষজ্ঞরা এটা পরামর্শ দিয়ে থাকেন যে, দিনের শুরুতে অল্প পরিমাণে ডাবের পানি উচ্চ রক্তচাপ প্রশমনে কার্যকরী।

৩. বমি প্রতিরোধে এবং মূত্রনালির চিকিৎসায় : অবাক হলেও এটা সত্য যে, বমি হলে ডাবের পানি ওষুধের মত কাজ করে বমি থামাতে সাহায্য করে, এবং এটা মুত্রপ্রদাহে কার্যকরী।

৪. পানিশূন্যতা কমায় : গরমে শারীরিক পরিশ্রমে এবং খাটনিতে দেহের পানিশূন্যতা দেখা দেয়, সে ক্ষেত্রে ডাবের পানি এই পানিশূন্যতা রোধ করে। গবেষণাতে দেখা যায় যে, স্পোর্টস ড্রিংক্সে যে পরিমাণ পটাসিয়াম এবং চিনি থাকে, ডাবের পানিতে তার দ্বিগুণ পরিমানে থাকে। কাজেই স্পোর্টস ড্রিংক্সের বিকল্প হিসেবে এটা কাজ করবে।

৫. হজমের সমস্যা কমাতে সাহায্য করে : হ্যাঁ, আপনি যদি পরিপাকক্রিয়ার সমস্যাতে ভুগে থাকেন, তাহলে ডাবের পানি আপনাকে এটা থেকে মুক্তি দিবে। এই পানিতে প্রচুর পরিমানে আঁশ আছে, যা বদহজম দূর করে।

৬. গ্যাস্ট্রিক এবং আলসারে ডাবের পানি: আমাদের অনেকেরই গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা, তো এখন চিন্তার কিছু নাই, প্রতিদিন ১ গ্লাস ডাবের পানি আপনার গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা অনেকাংশে কমিয়ে দিবে

৭. প্রাকৃতিক ত্বক পরিষ্কারক : যারা ব্রণ নিয়ে সমস্যায় আছেন, তাদের জন্য অন্য যেকোনো ওষুধের চেয়ে বেশি কার্যকরী হল এই ডাবের পানি। ত্বকের মৃত কোষের সংখ্যা কমিয়ে দেয় ডাবের পানি। প্রতিদিন নিয়ম করে একবার ডাবের পানি দিয়ে মুখ ধুলে ব্রণ অনেকাংশে কমে যায়।

আপনি কি পরিমাণ গ্রহন করবেন ডাবের পানি?
চিকিৎসকরা বলেন যে, ৮ আউন্স ডাবের পানি তে ৬০ ক্যালোরি পর্যন্ত থাকে, কাজেই যখন আপনি ডাবের পানি কিনতে যাবেন, তখন দেখে নিবেন যাতে পানি থাকে এবং যাতে সেটা কচি ডাব হয়, কারণ কচি ডাবে পুষ্টি উপযুক্তভাবে থাকে।

তাহলে আর দেরি কেন, হয়ে যাক ১ গ্লাস ডাবের পানি।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।