অনিদ্রা বা ইনসমনিয়া থেকে মুক্তি পাবার ৬টি পদ্ধতি

insomniaবিছানায় শুয়ে এপাশ ওপাশ করেই রাত কেটে যাচ্ছে। মাথা ব্যথা আর ঘুম ঘুম চোখে সারতে হচ্ছে সারাদিনের কাজগুলো। ইনসমনিয়া বা অনিদ্রা রোগে (insomnia) ভুগছেন প্রায় সবাই এই ব্যাপারগুলোর সাথে পরিচিত। অনিদ্রা দূর করার কিছু পদ্ধতি জানাচ্ছি এই লেখাটিতে।

১. মেডিটেশন করুন (try meditation):

মেডিটেশন (medition) বা ধ্যান আমাদের সব দুশ্চিন্তা, মানসিক চাপ দূর করে দেয়। ফলে মন শান্ত থাকে। শান্ত মন ঘুমের প্রধান শর্ত। তাই যোগ ব্যায়াম (yoga) করতে পারেন অথবা এই ইউটিউব ভিডিওটি দেখুন।

২. ট্রিপ্টোফ্যান যুক্ত খাবার খান (tryptophan):

ট্রিপ্টোফ্যান (tryptophan) একটি ক্যামিকেল যা আমাদের মস্তিষ্ককে সহজেই ঘুমিয়ে পড়তে সাহায্য করে । দৈনিক খাবারের তালিকায় ট্রিপ্টোফ্যানযুক্ত খাবার রাখুন। মুরগি, মাখন, টুনা মাছ এবং সয়াবিনে ট্রিপ্টোফ্যান থাকে, তাই এই খাবারগুলো ইনসমনিয়ায় আক্রান্ত ব্যক্তির জন্য খুবই সহায়ক।

৩. দুধ: প্রাকৃতিক ঘুমের ঔষধ (milk as a natural sedative):

দুধে আছে এমন উপাদান যা মানসিক চাপ দূর করে এবং ঘুমাতে সাহায্য করে। সামান্য মধু (honey) মিশ্রিত এক গ্লাস উষ্ণ গরুর দুধ রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে পান করে নিন।

৪. প্রতিদিন একটি নির্দিষ্ট সময়ে ঘুমাতে যান (keeping a normal bedtime schedule):

প্রতিদিন একটি নির্দিষ্ট সময়ে ঘুমাতে যান এবং সকালে জাগার জন্য একটি সময় নির্ধারণ করুন। ঘুম না হলেও সকালের সেই সময়টিতে বিছানা ত্যাগ করুন। ধীরে ধীরে আপনার শরীর এই প্রক্রিয়াটির সাথে অভ্যস্ত হয়ে পড়বে। ফলে অনিদ্রা দূর হবে।

৫. ক্যাফেইন: চা এবং কফি পানের পরিমাণ কমান (limit the use of caffeine):

চা এবং কফিতে থাকা ক্যাফেইন (caffeine) কিছু ব্যাপারে শরীরের জন্য উপকারী হলেও ঘুমের ব্যাপারে তা নয়। অতিরিক্ত ক্যাফেইন শরীরে প্রবেশ করলে তা ঘুমের ব্যাঘাত ঘটায়। ইনসমনিয়ায় আক্রান্ত হলে দিনে ১ বা ২ কাপ এর বেশি চা বা কফি পান করবেন না। এর পরিবর্তে গ্রীন টি পান করুন।

৬. শোবার ঘর অন্ধকার রাখুন (ensure No Lights):

দ্রুত ঘুমিয়ে পড়ার জন্য অন্ধকার ঘর আবশ্যক। শোবার ঘর সম্পূর্ণ আলো মুক্ত রাখুন। যদি তা সম্ভব না হয় তাহলে বিছানার অবস্থান এমনভাবে পরিবর্তন করুন যাতে আলো আপনার চোখে না পড়ে।

এছাড়াও আমাদের এই লেখাটি আপনাকে সাহায্য করবেঃ

পরামর্শ.কম এ স্বাস্থ্য ও রূপচর্চা বিভাগে প্রকাশিত লেখাগুলো সংশ্লিষ্ট লেখকের ব্যক্তিগত মতামত ও সাধারণ তথ্যের ভিত্তিতে লিখিত। তাই এসব লেখাকে সরাসরি চিকিৎসা বা স্বাস্থ্য অথবা রূপচর্চা বিষয়ক বিশেষজ্ঞ পরামর্শ হিসেবে গণ্য করা যাবে না। স্বাস্থ্য/ রূপচর্চা সংক্রান্ত যেকোন তথ্য কিংবা চিকিৎসার জন্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের/বিউটিশিয়ানের শরণাপন্ন হোন।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।