২০১৫ সালকে সফল করে তুলতে যা করতে পারেন

success in  2015নতুন বছরের দ্বিতীয় মাস শুরু। সবারই ইচ্ছা তার এ বছরটি যেন গত বছরের থেকে আরো বেশি ভাল ও সুন্দর কাটে। আর আপনার এ নতুন বছরটি সাফল্যমন্ডিত করে তোলার জন্যই পড়তে পারেন এ লেখাটি।

লক্ষ্যকে শুধু ইচ্ছার মাঝে সীমাবদ্ধ রাখবেন না, প্রতিজ্ঞায় পরিণত করুন

ধরা যাক, আপনি সিদ্ধান্ত নিলেন এ বছরের জুন মাসের মাঝে ওজন কমিয়ে ফেলার। কিন্তু যদি বলেন “আমি আশা করি এটা করবো” তবে দেখা যাবে ২-৩ সপ্তাহ পরে আপনি হাল ছেড়ে দিয়েছেন। যথারীতি খাচ্ছেন জাঙ্ক ফুড। এর চেয়ে ওজন কমাতেই হবে এরকম লক্ষ্য নির্ধারণ করে সেটাকে আঁকড়ে ধরে কাজ করুন। আপনি সফল হবেনই। এটা শুধু ওজন কমানোই নয়, যে কোন কাজের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য।

অন্যদের সাথে যোগাযোগ স্থাপন করুন

যোগাযোগ বা নেটওয়ার্কিং গড়ে তোলা বেশ গুরত্বপূর্ণ মাধ্যম সাফল্য অর্জনের জন্য। আপনি যে কাজে সাফল্য লাভ করতে চান, সে কাজে অভিজ্ঞ ব্যক্তিদের সাথে যোগাযোগ স্থাপন করুন। আপনি হয়তো ভালো কোন চাকরি বা কাজের সুযোগ খুঁজছেন। এটার মানে হচ্ছে আপনাকে এরকম কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে খুঁজে বের করতে হবে যে আপনাকে সে সুযোগটি করে দেবে।

কৃতজ্ঞ থাকুন

এই একটি পদ্ধতি যার মাধ্যমে আপনার প্রতিদিনের কর্মব্যস্ততার চাপ হ্রাস পাবে, জীবন হয়ে উঠবে আরেকটু আনন্দময়। রাতে ঘুমাতে যাবার আগে একটা ছোট ডায়েরিতে দিনে আপনার করা অন্তত একটি জিনিসের জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করুন। যেমন হতে পারে দুপুরে যে খাবারটি খেলেন সেটা হয়তো একেবারেই কম মূল্যের, কিন্তু আপনি জানেন কি এই একই পৃথিবীতে বহু মানুষ তিন বেলাই ঠিকভাবে খেতে পায় না? আপনি কি ভাল নেই তাদের থেকে?

সুস্থ থাকুন

যাই ঘটুক না কেন, নিজের স্বাস্থ্যের প্রতি অবশ্যই যত্ন নেবেন। জীবন যাপনে সব কিছুই নিয়মের মাঝে আনার জন্য দৃঢপ্রতিজ্ঞ হন। বিশ্বাস করুন, এটা কাজে দেবেই।

পড়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন

ব্যস্ত জীবনে পড়ার সময় নেই? জেনে রাখুন এটাও এক ধরণের ভুল। দিনে অন্তত এক ঘন্টা বই, পত্রিকা বা ম্যাগাজিন অথবা আপনার ভাল লাগে এরকম কিছু পড়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন। এটা মস্তিষ্ককে সক্রিয় করে তুলবে, চিন্তা ভাবনা করার শক্তিকে করবে প্রসারিত। এর ফলে সাফল্য লাভের জন্য নিজের কর্মপন্থা ঠিক করা আপনার জন্য সহজ হবে।

নির্দিষ্ট লক্ষ্য ঠিক করুন

কিছু মানুষ কেন ব্যর্থ হয়? এটার মূল কারণ তারা জানেন না যে তারা আসলে জীবনে কি অর্জন করতে চান, তাদের জীবনের লক্ষ্য কি। এটা অনেকটা কুয়াশা ঢাকা পথে কোন কম্পাস বা দিক-নির্দেশনা ছাড়া হাঁটার মতোই একটি ব্যপার। নিজের জন্য একটি লক্ষ্য ঠিক করুন, হতে পারে সেটা ব্যক্তিগত, পেশাগত বা অন্য যেকোন কিছু নিয়েই। এটা আপনাকে সাফল্যের পথে আরো এক ধাপ এগিয়ে নিয়ে যাবে।

নিজেই নিজেকে চ্যালেঞ্জ করুন

সবারই কোন না কোন দুর্বলতা আছে। সবাই সব কাজে দক্ষ হবে না এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু মানুষের অসাধ্য বলে তো কিছু নেই। তাই সাফল্য লাভের জন্য নিজের যে দুর্বলতাগুলো দূর করা দরকার সেগুলো নিয়ে কাজ করুন, চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিন যে এগুলো আপনি অতিক্রম করবেনই।

করুন সঠিক আর্থিক পরিকল্পনা

আপনার অনেক অর্থ থাকতে হবে এরকম কোন কথা নেই। কিন্তু যতটুকুই থাক, সেটা নিয়েই নিজের মতো পরিকল্পনা করুন। নির্দিষ্ট লক্ষ্য পূরণের জন্য ব্যক্তগত জীবনে একটি নির্দিষ্ট আর্থিক পরিকল্পনা থাকা খুবই জরুরী। আর সেজন্যই বলা হয় “আয় বুঝে ব্যয় কর”।

পরিবার ও সম্পর্কের প্রতি দায়বদ্ধ থাকুন

পরিবার, বন্ধু ও আত্মীয়রা আমাদের জীবনের সবচেয়ে গুরত্বপূর্ণ অংশ। এ সম্পর্কগুলোর প্রতি বিশ্বাস্ত ও দায়বদ্ধ থাকুন। তাদের সাথে নিজের সুখ- দুঃখ, আনন্দ-বেদনা ভাগ করে নিন। জীবনে সাফল্য লাভের জন্য কাছের মানুষগুলোর সাথে একটি সুন্দর সম্পর্ক অনেক গুরত্বপূরণ ভূমিকা পালন করে।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।