ফল ও শাকসবজি খাওয়াকে আরো বেশি উপভোগ্য করে তুলবেন যেভাবে

fvফল এবং শাক সবজি শরীরকে যেমন সুস্থ রাখে তেমনি ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতেও সাহায্য করে। কিন্তু দৈনন্দিন ব্যস্ততা বা কাটাকুটির ঝামেলার কারণে আমরা প্রয়োজনের চেয়ে অনেক কম ফল এবং সবজী খেয়ে থাকি। সহজ কিছু প্রক্রিয়া এই ঝামেলা কমিয়ে দিতে পারে অনেকগুণ, সেই সাথে বাড়িয়ে তুলতে পারে আপনার দৈনন্দিন ফল এবং সবজি খাওয়ার পরিমাণ।

১. এমন সবজি বাছাই করুন যা আপনি খেতে পছন্দ করেন। এতে সবজি খাওয়ার আগ্রহ এবং পরিমাণ দুইই বাড়বে।

২. আপনার দৈনন্দিন খাবারে যেসব সবজি সবসময়ই প্রয়োজন হয় তা সপ্তাহের শুরুতেই প্রস্তুত করে রাখুন। যেমনঃ পেঁয়াজ, রসুন বা মরিচ কিছুটা বেশী পরিমাণে নিয়ে গুঁড়ো করে, পিষে বা কেটে ফ্রিজে রেখে দিন। গাজর, টমেটো কুঁচি করে কেটে ফ্রিজে রেখে দিতে পারেন। এতে পরবর্তীতে রান্নার সময় বেশ কিছুটা সময় বেঁচে যাবে।

৩. প্রতিদিনের খাবারে একটু বেশি পরিমাণে পেঁয়াজ, রসুন এবং গোলমরিচ ব্যবহার করুন। এতে আপনার খাবারের স্বাদ যেমন বাড়বে তেমনি হবে পুষ্টিকরও। পেঁয়াজে আছে প্রচুর ভিটামিন “সি” এবং ফলিক এসিড। রসুনে আছে ভিটামিন “বি-৬” যা serotonin এবং dopamine নামক হরমোন উৎপাদনে বিশেষ ভূমিকা রাখে। এই serotonin এবং dopamine আমাদের মনকে প্রফুল্ল রাখতে সাহায্য করে।

৪. একটি পাত্রে বিভিন্ন ফল সাজিয়ে রেখে দিন ডাইনিং টেবিলে। যে মৌসুমে যেমন ফল পাওয়া যায় তার প্রত্যেকটা থেকে কিছু কিছু সংগ্রহ করে নিন। সকালে বা বিকালের ভাজাপোড়া নাস্তার পরিবর্তে ফল খেয়ে নিতে পারেন।

৫. লেবু কেটে রেখে দিন ফ্রিজে বা রান্নাঘরে। খাবারে কিছুটা লেবুর রস যেমন আপনার ভিটামিন “সি” এর অভাব পূরণ করবে তেমনি রুচি বাড়িয়ে তুলবে। গরমের দিনে লেবুর ঠাণ্ডা শরবত আপনার ক্লান্তি দূর করে দিবে নিমিষেই।

৬. গাজর, বীট, টমেটো বা শসা আগেই কেটে ফ্রিজে রাখুন। দ্রুত সালাদ বানানো সহজ হবে। এছাড়াও দিনের বিভিন্ন সময়ে টুকটাক কিছু খেতে ইচ্ছা হলে এক টুকরো গাজর বা শসা খেয়ে নিতে পারেন। ক্ষুধা আর পুষ্টির চাহিদা দুইই পূরণ হবে একসাথে।

৭. আনারস, বা তরমুজ বেশ কিছুদিন সতেজ থাকে। তাই টুকরো করে কেটে রেখে দিন সারা সপ্তাহ জুড়ে খাওয়ার জন্য।

৮. অনেকে রাতের খাবারের পর ডেসার্ট হিসেবে দৈ, মিষ্টি বা আইসক্রিম খেতে পছন্দ করেন। আঙ্গুর বা কমলা হতে পারে এর চমৎকার বিকল্প। আপনার পুষ্টির চাহিদা তো পূরণ হবেই সাথে বেঁচে যাবে বেশ কিছু টাকাও।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।