বেরিয়ে আসুন কম্পিউটারের গতি বৃদ্ধি সংক্রান্ত কিছু ভ্রান্ত ধারণা থেকে

Stay Out of Some Windows Tweaking Myths

কম্পিউটারের গতি (speed up pc) ও কর্মদক্ষতা (pc performance) বাড়ানোর জন্য আমাদের চেষ্টা প্রাণান্তকর। কম্পিউটার সম্পর্কে সাধারণ ধারণা আছে এমন অনেকেই এই গতি বাড়ানোর চেষ্টাটা করে শুধুমাত্র উইন্ডোজের উপর দিয়ে। এটা ঠিক যে সফটওয়্যারে পরিবর্তন সাধন করে কিছুটা গতি বাড়ানো সম্ভব কিন্তু আসলেই যদি আপনার কম্পিউটারের গতি এবং কর্মদক্ষতা বাড়াতে চান তাহলে অবশ্যই পরিবর্তন আনতে হবে হার্ডওয়্যারে। এই লেখায় তুলে ধরছি কিছু পদ্ধতি যা কম্পিউটারের গতি বাড়ানোর পরিবর্তে কমিয়ে দিচ্ছে।

১. Prefetch ডিলিট করবেন না (do not delete prefetch):

অনেকেই বলে থাকেন নিয়মিত Prefetch ডিলিট করলে পিসির গতি বৃদ্ধি পায়। Prefetch হচ্ছে উইন্ডোজের এপ্লিকেশনগুলোর cache ফাইল। যখনই আপনি কোন এপ্লিকেশন রান করেন, উইন্ডোজ সে সম্পর্কিত কিছু তথ্য Prefetch এ রেখে দেয়, যাতে পরবর্তীতে সেই এপ্লিকেশন রান করতে কিছুটা কম সময় লাগে। Prefetch ডিলিট করে দেয়ার ফলে উইন্ডোজকে বার বার একই Prefetch নতুন করে তৈরি করতে হয় ফলে এতে পিসি ধীর গতির হয়ে পড়ে। তাই Prefetch ডিলিট করবেন না।

windows-tweaking-myths-prefetch-folder

২. Pagefile ডিলিট করা থেকে বিরত থাকুন (keep pagefile untouched):

অনেকগুলো এপ্লিকেশন একত্রে রান করার ফলে র‍্যাম এর উপর প্রচণ্ড চাপ পড়ে, তখন সবচেয়ে কম ব্যবহৃত হচ্ছে এমন এপ্লিকেশনগুলো “Pagefile.sys” নামক ফাইলের মাধ্যমে উইন্ডোজ C ড্রাইভে সংরক্ষণ করে। ফলে অন্যান্য দরকারি এপ্লিকেশনগুলো ক্রাশ হওয়ার হাত থেকে রক্ষা পায়। Pagefile ডিলিট করবেন না, এতে আপনার প্রয়োজনীয় এপ্লিকেশন রান করতে সমস্যা হবে, সেগুলো বার বার ক্রাশ করতে থাকবে এবং পিসি গতি হারাবে।

windows-tweaking-myths-pagefile

৩. ম্যানুয়ালি Defragment করবেন না (no need to defragment manually):

হার্ডডিস্কের সুরক্ষা এবং গতি বৃদ্ধিতে Defragmenting একটি পরীক্ষিত পদ্ধতি। তবে বর্তমানকালের অপারেটিং সিস্টেমগুলো নিজ থেকেই এই কাজটি করে থাকে যদি না আপনি Defragmenting এর অপশনটি বন্ধ করে দেন। তাই বিনা কারণে Defragment করবেন না।

windows-tweaking-myths-defragmentation

এ ধরণের আরও লেখা পড়ুনঃ

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।