স্তন ক্যান্সার সম্পর্কে জানুন, নিজেকে বিপদ মুক্ত রাখুন

Know About Breast Cancerসাম্প্রতিক সময়ে মেয়েদের স্বাস্থ্যের সবচেয়ে বড় হুমকির নাম “স্তন ক্যান্সার”। সচেতনতার অভাবে প্রতি বছর এই রোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু বরণ করছে অনেকে। সাথে বাড়ছে আক্রান্তের হার। চিকিৎসকগন বলেন প্রাথমিক অবস্থায় ধরা পড়লে নিরাময় করা সম্ভব হয়। আর তার জন্য প্রয়োজন এই রোগের কারণ ও লক্ষণ সম্পর্কে জানা। যাতে করে এই রোগের আগাম বার্তা শণাক্ত করে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হয়ে শুরুতেই এটি রোধ করা যায়।

স্তন ক্যান্সারের লক্ষণ

ক্যান্সারের নানা ধরণ রয়েছে তার মধ্য অন্যতম “স্তন ক্যান্সার”, যা স্তনের কোষের ভিতর সৃষ্টি হয়। যদিও ছেলেরা এই রোগে আক্রান্ত হয়ে থাকে তবে এর হার মেয়েদের তুলনায় খুব কম বলা যায়। নিম্নোক্ত লক্ষণ চিনতে ও অনুভব করতে পারলে সাথে সাথে চিকিৎসকের কাছে যাওয়া উচিত। লক্ষণ সমূহ তুলে ধরা হল-

  • স্তনে খন্ড বা পিন্ড, টুকরা জাতীয় কিছু অনুভব।
  • স্তনে ব্যথা অনুভব।
  • স্তনবৃন্তের (nipple) চারপাশে ছোট ছোট লাল ফুসকুড়ি।
  • বগলের নিচে ফোলা অনুভব।
  • স্তনবৃন্ত থেকে রক্ত পড়া
  • স্তনবৃন্ত ঝুলে পড়া।
  • স্তনের আকার পরিবর্তন হওয়া।
  • স্তনের চারপাশে চামড়া আঁশের মত খসে পড়া।

স্তন ক্যান্সারের কারণ

এবার জানবো এর কারণ সমূহ। কিছু বিষয় আছে যা দেহে স্তন ক্যান্সার আক্রমণকে প্রভাবিত করে থাকে। আক্রান্তের সম্ভাবনাকে বাড়িয়ে তুলে। নিম্নোক্ত বিষয় গুলো যাদের রয়েছে তাদের জরুরী ভিত্তিতে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করানো উচিত।

  • বয়স বৃদ্ধিঃ বয়স বাড়ার সাথে সাথে মেয়েদের এই রোগের আক্রান্ত হওয়ার আশংকা বাড়তে থাকে। বিশেষ করে ৫০ কোঠা ছুঁয়ে গেলে।
  • বংশগতঃ অনেক সময় বংশের কারো এই রোগের ইতিহাস থাকলে ভবিষ্যত প্রজন্মের কেঊ আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থেকে যায়।
  • স্তনে ফুসকুড়িঃ স্তনে গোটা বা ফুসকুড়ি মানেই ক্যান্সারের লক্ষণ নয়। তবে অনেক সময় স্তনের এই গোঁটা বা পিন্ড ক্যান্সারে রুপান্তরিত হতে পারে।
  • অতিরিক্ত কোষঃ যাদের স্তনে টিস্যু বা কোষের সংখ্যা বেশি থাকে তারা বেশি ঝুঁকিতে থাকে।
  • রজঃনিবৃত্তিঃ সাধারণত যাদের ঋতুস্রাব বন্ধ হয়ে যায়। তারাও আক্রান্ত হওয়ার আশংকায় থাকে।
  • ওজন বৃদ্ধিঃ অতিরিক্ত ওজনের অধিকারী এই রোগের আক্রমনের সম্ভাবনা বেশি।

এছাড়া অনেক সময় হরমোন থেরাপি নেওয়া বা এক্স-রে, সিটি স্ক্যন করানো দেহে স্তন ক্যান্সার সৃষ্টি হওয়াতে প্রভাব রাখে। তাই এরকম কোন লক্ষণ দেখা দিলেই দেরি না করে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিন ও সে অনুযায়ী কাজ করুন।

আরো পড়তে পারেন

Medical News Today

পরামর্শ.কম এ স্বাস্থ্য ও রূপচর্চা বিভাগে প্রকাশিত লেখাগুলো সংশ্লিষ্ট লেখকের ব্যক্তিগত মতামত ও সাধারণ তথ্যের ভিত্তিতে লিখিত। তাই এসব লেখাকে সরাসরি চিকিৎসা বা স্বাস্থ্য অথবা রূপচর্চা বিষয়ক বিশেষজ্ঞ পরামর্শ হিসেবে গণ্য করা যাবে না। স্বাস্থ্য/ রূপচর্চা সংক্রান্ত যেকোন তথ্য কিংবা চিকিৎসার জন্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের/বিউটিশিয়ানের শরণাপন্ন হোন।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।