জেনে নিন কয়েকটি জুসের প্রস্তুত প্রণালী যা বৃদ্ধি করে হজম শক্তি

orange juice for diabetesদুর্বল হজম শক্তি (digestion ability) আমাদের শরীরের নানা ধরণের রোগ ব্যাধি ও সমস্যার জন্ম দেয়। হজম শক্তি কম থাকার কারণে আমরা গ্যাসট্রিক, পেটে ব্যথা, মাথা ব্যথা, ত্বকে সমস্যা, মাইগ্রেন ও পৃষ্ঠদেশে ব্যথা ইত্যাদি সমস্যাগুলোর সম্মুখীন হয়। এতো সব সমস্যার কারণ কিন্তু একটাই। তাই আমরা যদি এই একটি সমস্যার সমাধান করতে পারি তাহলে বাকী সমস্যাগুলো এমনিতেই কমে যাবে। আমরা ঘরে বসে প্রকৃতি প্রদত্ত উপাদান যেমন ফলমূল, সবজি ও নানাবিধ ভেষজ উপাদান জুস (juice) বানিয়ে পান করেই আমাদের হজম শক্তি বাড়াতে পারি।

যেভাবে জুসগুলো বানাবেন (how to prepare these juices)

  • লেবুর জুস (lemon juice): আপনার হজম শক্তি বাড়াতে একগ্লাস ফ্রেস লেবুর জুসের সাথে খানিকটা বেকিং সোডা মিশিয়ে পান করুন। এই দুই উপাদানের মিলিত শক্তি আপনার হজম শক্তি বাড়িয়ে তুলবে। সকালটা যদি আপনি হালকা গরম পানির সাথে লেবুর রস মিশিয়ে একগ্লাস জুস পান করা দিয়ে শুরু করেন তাহলে সারাদিনে আপনার পেট শান্ত থাকবে আর আপনার হজম শক্তি অনেকটা বেড়ে যাবে।
  • অ্যালোভেরা জুস (aloe vera juice) : হজম শক্তি বাড়াতে অ্যালোভেরা জুসের তুলনা হয় না, এর প্রাকৃতিক এনজাইম, ভিটামিন সি ও অ্যামিনো অ্যাসিড আপনার হজম শক্তি বাড়িয়ে তুলতে সাহায্য করে।
  • কমলার জুস (orange juice) : হজম প্রক্রিয়া স্বাভাবিক রাখতে কমলার জুস খুব কাজের। কমলা জুস করে বাড়তি চিনি যোগ না করে পান করে দেখুন হজম শক্তি বৃদ্ধি পাবে।
  • সবজির জুস (vegetable juice) : সকালে খালি পেটে আপনি যদি একগ্লাস তাজা সবজির জুস পান করেন তাহলেও আপনার হজম শক্তি বৃদ্ধি পাবে। সবজি আপনি আপনার পছন্দমতো নিতে পারেন। কেননা সবজির জুস আপনার শরীরে কোন বিরূপ প্রতিক্রিয়ার জন্ম দেবেনা।
  • পেঁপের জুস (papaya juice) : পেঁপে হজম শক্তি বৃদ্ধিকারক একটি ফল। আপনি একটি পেঁপের কিছুটা নিয়ে সেটা জুস বানিয়ে যদি পান করেন তাহলে আপনার হজম শক্তি বাড়াতে ম্যাজিকের মতো কাজ করবে।
  • আদার জুস (ginger juice) : আদা চীনে প্রাকৃতিকভাবে হজম শক্তি বৃদ্ধিকারক হিসেবে ভীষণ জনপ্রিয় একটি আয়ুর্বেদ উপাদান। চায়ের সাথে যদি আপনি কিছুটা আদা মিশিয়ে খেতে পারেন তাহলে আপনার হজম সমস্যা অনেকটাই কমে যাই। তবে মনে রাখবেন দিনে এটি পরিমাণ যেন কোনভাবেই ১ থেকে ৩ গ্রামের বেশী না হয়।

খাদ্য সঠিকভাবে হজম করাতে পানির (drinking water) কোন বিকল্প হয়না। আপনি যদি সকালে উঠেই খালি পেটে যতোটা পারেন পানি পান করতে পারেন তাহলে আপনার পেট এমনিতেই সুস্থ থাকবে। তাছাড়া খাবার খাওয়ার পর পর্যাপ্ত পানি পান খাবার হজম দ্রুত করে। আর একটা ব্যাপার সব সময় মাথায় রাখতে হবে খাবার পরিমিত খান, এমনভাবে খান যাতে আপনি শান্তি অনুভব করতে পারেন, অশান্তি নয়।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।