নিজেই দেখুন মানচিত্র, খুঁজে নিন কাঙ্ক্ষিত গন্তব্য

map-1অনেক সময় এমন হয়, আমরা কোথাও ভ্রমণে গিয়ে সঠিক রাস্তা খুঁজে পাই না। অথবা রাস্তায় চলতে চলতেই এমন কোন জায়গায় গিয়ে পড়ি, যেখান থেকে গন্তব্যে ফিরে আসতে যথেষ্ট প্রতিকূলতার সম্মুখীন হতে হয়, যদি সঠিক রাস্তা জিজ্ঞেস করার মতো বিশ্বস্ত লোক খুঁজে পাওয়া না যায়। আপনাকে কারোর উপরই ভরসা করতে হবে না, যদি আপনি নিজেই আপনার সঠিক গন্তব্য চিনে নিতে পারেন। আর সেজন্য আপনাকে খুব বেশি কিছু করতে হবে না। শুধুমাত্র একটু কষ্ট করে মানচিত্র দেখাটা শিখে নিতে হবে। এখন প্রশ্ন হলো, কিভাবে দেখবেন মানচিত্র?

১ম ধাপ-সঠিক মানচিত্র চিহ্নিতকরণ

মানচিত্র হরেক রকমের হতে পারে-

• হাইওয়ের ড্রাইভারদের জন্য একরকম মানচিত্র
• ট্যুরিস্টদের জন্য একরকম মানচিত্র
• যারা পাহাড়ে অথবা দুর্গম কোন অঞ্চলে হাইকিং করেন, তাদের জন্য একরকম মানচিত্র
• পাইলটদের জন্য বিশেষ মানচিত্র
• অনলাইন মানচিত্র
আপনার সর্বপ্রথম কাজ হবে, আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী সঠিক মানচিত্রটি বেছে নেওয়া।

২য় ধাপ-মানচিত্রের সীমারেখা পর্যবেক্ষণ

map-2বেশিরভাগ মানচিত্রই উত্তর দিকে উর্ধ্বমুখী করে আঁকা থাকে। প্রায় সব মানচিত্রেই এটা উল্লেখ করা থাকে। যদি না থাকে, তাহলে ধরে নিতে হবে উত্তর- উর্ধ্বমুখী করেই এটি আঁকা হয়েছে।

৩য় ধাপ-মানচিত্রের সীমারেখা বোঝা

মানচিত্রের সীমারেখা (Map Scale) দ্বারা কোন নির্দিষ্ট স্থানের Map Distance এবং Real Distance এর অনুপাত প্রকাশ করা হয়। এই অনুপাত বিভিন্ন মানচিত্রভেদে বিভিন্ন হতে পারে। আমরা যদি কোন মানচিত্রের নীচের দিকে তাকাই, তাহলে দেখতে পাবো সেখানে মানচিত্রের Scale রয়েছে। সেখানে থাকতে পারেঃ 1:100,000. এই অনুপাতের একটি নির্দিষ্ট অর্থ রয়েছে। এর অর্থঃ এই মানচিত্রের 1 Unit, বাস্তবজগতের 100,000 Unit/ এককের সমান। সাধারণভাবে নিম্নোক্ত অনুপাতগুলো বেশি ব্যবহৃত হয়ে থাকেঃ

• পায়ে হাঁটা দূরত্বের জন্য- 1:25,000
• ড্রাইভিং এর জন্য- 1:190,000
• পুরো পৃথিবী দেখার জন্য- 1:24,000,000

map-3আপনার গন্তব্যের দূরত্ব কতটুকু, সেটা বোঝার জন্য আপনাকে আপনার জন্য উপযোগী মানচিত্রে দুটি Point Selection করতে হবে। যে Point এ আপনি আছেন, সেটিকে A ধরুন। আর যেখানে যেতে চান, সেটিকে B ধরুন। উদাহরণস্বরূপ, আপনার ব্যবহৃত মানচিত্রের Scale 1:25,000. Point-A থেকে Point-B এর দূরত্ব 6 inches (15.2 cm)।তাহলে Total Distance হবেঃ 6 * 250,000 = 1,500,000 inches (3,810,000 cm). এখানে উল্লেখ্য, ১ মাইল= ৬৩,৩৬০ ইঞ্চি। তাহলে, Point-A থেকে Point-B এর দূরত্বঃ 1,500,000 ÷ 63,360 = 23.7 miles।

৪র্থ ধাপ- অক্ষাংশ এবং দ্রাঘিমাংশ চিহ্নিতকরণ

ধারেকাছে কোথাও যাওয়ার জন্য এটি তেমন গুরুত্বপূর্ণ নয়। কিন্তু আপনি যদি অন্য কোন দেশে যান, অথবা কোন দুর্গম অঞ্চলে, তাহলে সেই জায়গার অক্ষাংশ এবং দ্রাঘিমাংশ আপনার জানা থাকা জরুরী।

map-4• পৃথিবীর কেন্দ্র দিয়ে উত্তর-দক্ষিণে কল্পিত রেখাকে অক্ষরেখা (ইংরেজি: Latitude বা φ) বা মেরু রেখা বলে।
• দ্রাঘিমাংশ (ইংরেজি: Longitude বা λ) স্থানাঙ্ক ব্যবস্থার কেন্দ্রে পূর্বে বা পশ্চিমে, ভূপৃষ্ঠের কোন বিন্দু বিষুব রেখার সাথে উল্লম্ব কোন পরিধির (যা উত্তর ও দক্ষিণ মেরুকে ছেদ করেছে) সাথে যে কোণ উৎপন্ন করে তার পরিমাপ।
• মানচিত্রের ডান/বাম পাশের সংখ্যাগুলো দ্বারা অক্ষাংশ প্রকাশ করা হয়।
• মানচিত্রের উপর/নীচের সংখ্যাগুলো দ্বারা দ্রাঘিমাংশ প্রকাশ করা হয়।

যে Point এ অক্ষরেখা এবং দ্রাঘিমারেখা পরস্পরকে Cross করবে, সেটিই হচ্ছে Point of Reference।

৫ম ধাপ- সমোন্নতি রেখা (Contour Line) বোঝাঃ

map-5একটি জায়গা কতটুকু উঁচু অথবা নিচু, সেটি সমোন্নতি রেখা (Contour Line) দ্বারা প্রকাশ করা হয়। প্রতিটি রেখাই সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে Standard Height প্রকাশ করে।
• যেখানে সমোন্নতি রেখাগুলোর অবস্থান কাছাকাছি, বুঝতে হবে সেখানে ঢাল অনেক উঁচু অর্থাৎ ভূমি অসমতল।
• যেখানে সমোন্নতি রেখাগুলোর অবস্থান পরস্পর থেকে দূরে দূরে, বুঝতে হবে সেখানে ঢাল নিচু অর্থাৎ ভূমি অপেক্ষাকৃত সমতল।

৬ষ্ঠ ধাপ- মানচিত্রে ব্যাখামূলক বর্ণনা বোঝা

map-6প্রায় সব মানচিত্রেই কিছু ব্যাখ্যামূলক বর্ণনা (Legend) থাকে, যার মাধ্যমে সেই মানচিত্রগুলো সম্বন্ধে অনেক কিছু জানা যায়। সাধারণত নিম্নোক্ত Legend গুলো দেখা যায়ঃ
• বিভিন্ন রঙ এবং Size এর সম্পূর্ণ কিংবা Broken Lines, যেগুলোর মাধ্যমে রাস্তা, রেলপথ ইত্যাদি বুঝায়।
• বাদামী অথবা সবুজ রঙ দিয়ে পর্বত বুঝানো হয়।
• নদী, খাল, সমুদ্র ইত্যাদি নীল রঙ দিয়ে বুঝানো হয়।
• বন, গলফ কোর্ট, উদ্যান ইত্যাদি সবুজ রঙ দিয়ে বুঝানো হয়।
• ধূসর অথবা কালো রঙ বিল্ডিং নির্দেশ করে।

৭ম ধাপ- মানচিত্র ব্যবহার করে গন্তব্যে পৌঁছানো

map-7আপনার কাছে একটি মানচিত্র আছে। এখন আপনি এটি ব্যবহার করার জন্য প্রস্তুত।
map-8• ম্যাপের দিকে লক্ষ্য করুন। আপনি কোথায় আছেন, এটি আগে চিহ্নিত করুন। তারপর কোথায় যেতে চান, সেই জায়গা মানচিত্রে চিহ্নিত করুন। তাদের A এবং B দ্বারা চিহ্নিত করুন।
map-9• পেন্সিল এবং রুলার ব্যবহার করে A এবং B বরাবর Route Line আঁকুন। যতগুলো ইচ্ছা। রুট লাইন আঁকার সময় Legends, Land marks, Rivers, Prominent Places ইত্যাদির দিকে খেয়াল রাখুন। যাতে আপনার চিনতে সুবিধা হয়।
map-10মানচিত্রের Index এর দিকে খেয়াল রাখুন। এভাবে প্রাপ্ত Route Line গুলোর মধ্য থেকে সবচেয়ে Shortest Route Line বেঁছে নিন। এটিই হবে আপনার কাঙ্ক্ষিত গন্তব্য।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।