পরীক্ষাভীতির শিকার? পরীক্ষার আগ মুহূর্তে মনে রাখবেন যে বিষয়গুলো

exam-fearএমন অনেকেই আছেন পরীক্ষা তো দূরের কথা পরীক্ষার নাম শুনলেই ভয়ে অস্থির হয়ে যান। এই সমস্যা যে শুধু স্কুল পড়ুয়া ছাত্র ছাত্রীদের মধ্যে দেখা যায় এমনটা নয়, বরং এমন কেউ কেউ আছেন যারা লেখাপড়ার শেষ পর্যায়ে এসেও এখনো যে কোন ধরণের পরীক্ষার নাম শুনলেই  চমকে ওঠেন। কিন্তু এসবের ঝামেলাতে পড়ে আমরা ভুলেই যাই পরীক্ষা নিয়ে আমরা যতবেশি স্থির আর শান্ত থাকবো আমাদের মনোযোগ ও স্মরণশক্তি ততবেশি ভালো কাজ করবে।

পরীক্ষা ভীতির শিকার ছাত্র ছাত্রীদের জন্য উপকারি কিছু পরামর্শ দেওয়া

  • মনে রাখুন হতাশা আর উদ্বেগ আপনার বোধশক্তি হ্রাস করে ফেলে।  আপনি পরীক্ষা নিয়ে যতবেশি আতঙ্কিত হবেন আপনার মানসিক অবস্থা ততবেশি খারাপের দিকে যাবে। তাই পরীক্ষা নিয়ে যতোটা পারেন শান্ত থাকতে চেষ্টা করুন। যদি পরীক্ষার কোন প্রশ্ন আপনার কমন না পড়ে বা আপনার মাথা থেকে প্রশ্নের উত্তর বের হয়ে গিয়ে থাকে তাহলে উত্তেজিত না হয়ে লম্বা শ্বাস নিন আর ভালো করে দেখুন প্রশ্ন পত্রে হয়তো এমন কোন প্রশ্নও আছে যেটা আপনি সহজেই উত্তর করতে পারেন। আর যদি একান্তই কিছু মনে না পড়ে তাহলে কিছুটা সময় নিয় আপনার সাধ্য মতো মনে করার চেষ্টা করুন।
  • অনেকেই সারাবছর ঠিকঠাক না পড়ে পরীক্ষার আগের রাত বা পরীক্ষার দিন সকালে সবটা একেবারে পড়ে শেষ করতে চান, শেষ করার আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যান। একটা কথা ভুলে গেলে চলবে না আপনার পরীক্ষা ভীতির আরও একটি অন্যতম কারণ আপনার এই অভ্যাস হতে পারে। আমাদের মস্তিষ্ক এমন কোন বিশেষ উপাদানে বানানো নয় যাতে করে আপনার পরীক্ষার দিন সকালের একবারের পড়ায় সমস্ত পড়া একেবারে মনে থাকবে। তাই পরীক্ষা ভীতি কমাতে প্রতিদিনের পড়া প্রতিদিনই শেষ করার অভ্যাস গড়ে তুলুন।
  • পরীক্ষা ভীতির আরও একটি অন্যতম কারণ হতে পারে না বুঝে পড়া। আমরা অনেকেই না বুঝে কেবল পড়া আগাগোড়া মুখস্থ করার প্রতি বেশি গুরুত্ব প্রদান করি। যার প্রভাব পড়ে পরীক্ষার উপর, দেখা যাচ্ছে পরীক্ষার সময় আপনার মুখস্থ পড়া আর কোন কাজে আসছে না। কিন্তু আপনি যদি পড়া বুঝে পড়তেন তাহলে পরীক্ষার হলে পড়া মনে না পড়লেও আইডিয়া থেকে ঠিকই লিখতে পারবেন। তাই পরীক্ষা ভীতি কমাতে মুখস্থ পড়া বাদ দিয়ে বুঝে পড়ার অভ্যাস করুন।
  • পরীক্ষা ভীতি দূর করতে আপনার আরও একটি কার্যকর পদ্ধতি হলো যখনই পড়তে বসবেন মনোযোগ কেবল পড়ার প্রতি রাখতে চেষ্টা করবেন। পড়তে বসার সময় টিভি, মোবাইল, ইন্টারনেট, ফেসবুক সবটা বন্ধ রাখুন। আর একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য টাইমার ফিক্সড করে রাখুন। টাইমলি পড়া শেষ করে একটা বিরতি নিন। দেখবেন পড়া ভুলে যাওয়া সমস্যা আর থাকছে না। আর যখন পড়া ভুলে যাবেন না তখন পরীক্ষা ভীতিও থাকবে না।

পরীক্ষা শেষ হয়ে যাওয়ার পর পুনরায় শেষ হয়ে যাওয়া পরীক্ষা  নিয়ে আর বেশি মাথা ঘামাবেন না। হতেই পারে আপনার বিগত পরীক্ষা খারাপ হয়েছে কিন্তু আগামী পরীক্ষাগুলো ভালো মতো দিতে চাইলে খারাপটা নিয়ে বেশি না ভাবায় উত্তম। দেখা যাচ্ছে বেশি ভাবার ফলে পরেরবার পরীক্ষা হলে আপনার মধ্যে পরীক্ষা ভীতি কাজ করছে।

পরীক্ষা ভীতি দূর করতে পরীক্ষা নিয়ে আপনার মনের সমস্ত নেতিবাচক চিন্তাগুলো ঝেড়ে ফেলে কেবল পড়ার প্রতি মনোযোগ স্থাপন করুন।

আরো পড়ুন

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।