আপনার ভ্রমণকে আনন্দঘন করে তুলবেন যেভাবে

bus journey

bus journeyআমাদের প্রত্যেককেই কোনো না কোনো কাজে এক শহর থেকে আরেক শহর বা এক স্থান থেকে অন্য স্থানে ছুটে চলতে হচ্ছে। এই ছুটে চলা কারো জন্য জীবিকা নির্বাহীর তাগিদ বা কারো জন্য এক আনন্দ ভ্রমণ। এই ভ্রমণের মাধ্যম হিসেবে আমরা কখন বাস বা কখন ট্রেনকে বেছে নিই। স্বাভাবিকভবে আপনার ভ্রমণ যদি দীর্ঘ সময়ের জন্য হয় চলতি পথে এটি হয়ে দাঁড়ায় এক মহা বিরক্তির বা ক্লান্তির কারণ। আর যদি চলতি পথে ট্র্যাফিক জ্যামে পড়েন, তবে তো মেজাজ নিয়ন্ত্রণে রাখাই কঠিন হয়ে পড়ে। চাইলেই কিছু উপায়ে আপনার ভ্রমণকে আনন্দঘন করতে পারেন।

একজন সঙ্গী রাখতে পারেনঃ

একাকী ভ্রমন নিরানন্দপূর্ণ এবং একঘেয়ে। আপনার ভ্রমণকে আনন্দময় রাখতে একজন সঙ্গী চাই। চলতি পথে সেই সঙ্গী সাথে মজার মজার মুহূর্ত শেয়ার করুন যা আপনার ভ্রমনে আনন্দঘন এবং সৃতিময়ও করে তুলবে।

সঙ্গে রাখুন আপনার ব্যবহৃত ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইসঃ

আপনি দীর্ঘ ভ্রমণে যাচ্ছেন সময় কাটানোর জন্য অন্যতম মাধ্যম হিসেবে বেছে নিতে পারেন আপনার ব্যবহৃত মোবাইল ফোন, ট্যাব, হেড ফোন, এমপিথ্রি, নেটবুক যেইগুলোর উপযোগিতা আমাদের সবারই জানা।

কেবল বই হতে পারে আপনার অন্যতম সঙ্গীঃ

চাইলে বেছে নিন সব সময়ের সঙ্গী বই। আপনার ভ্রমণে উপভোগ করার জন্য সঙ্গে রাখুন আপনার পছন্দের উপন্যাস, বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী,নাটক, গোয়েন্দা গল্পের বই, কমিক্স ইত্যাদি।

উপভোগ করুন প্রাকৃতিক দৃশ্য

অনেকেক্ষণ বাসে, ট্রেনে বসে আছেন একঘেয়ে লাগছে তাই নিজেকে একটু শীতল করা দরকার সেজন্য আপনি জানালার বাইরে তাকান বাইরের সুন্দর দৃশ্যগুলো উপভোগ করুন।

নিজেকে খাপ খাইয়ে নিনঃ

ধরুন আপনার পরের সিটে ৫-৭ বছরের ছোট বাচ্চাও আপনার সঙ্গে একই বাসে বা ট্রেনে ভ্রমন করছে। হয়তোবা বাচ্চাটি অনেক চেঁচামেচি করছে যার ফলে আপনি বিরক্ত বোধ করছেন কিন্তু কোনভাবেই বিরোধে জড়াবেন না। কারণ আপনি জীবনের খুব অল্প একটু সময়ের জন্য তাদের সাথে থাকছেন। বরং আপনি নিজেকে অন্য সকল যাত্রীদের সাথে খাপ খাইয়ে নিন আপনার সাথে ঐ সকল যাত্রীদের সাথে আর ভবিষ্যতে সাক্ষাৎ নাও হতে পারে।

খুব বেশি ভারী মালামাল নিজের সাথে রাখবেন নাঃ

আপনি হয়তো বা গ্রামের বাড়ী যাচ্ছেন। আপনার সাথে করে অনেক কিছুই নিতে হচ্ছে তাই আপনি আপনার ভারি মালামাল সমূহও ডেস্কে রাখুন। আপনার সাথে খুবই হালকা জিনিসপত্র রাখুন। এতে করে আপনি নিজেকে হালকা রাখতে পারবেন এবং আপনার পাশের সিটের যাত্রী ও বিরক্ত বোধ হবেন না।

নিজের শিষ্টাচার বজায় রাখুনঃ

“ব্যবহার বংশের পরিচয়” এই কথাটি আমাদের সকলেরই জানা। যাত্রাপথে এমন কোনো আচরণ করবেন না যেন অন্য যাত্রী, ড্রাইভার,গাইডের মনে স্থুল পরিমান কষ্ট লাগে। চলতিপথে আপনি যদি অসুস্থবোধ বা অসুবিধাজনক পরিস্থিতির শিকার হন তবে আপনি সঙ্গে সঙ্গে গাইডের বা চালকের সঙ্গে যোগাযোগ করুন।

সব সময় ভ্রমণে আপনার সৃষ্টিকর্তাকে স্মরণ রাখুন উনি আপনাকে সকল ধরণেরর বিপদ থেকে রক্ষা করবেন। 

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।