ব্যায়াম ছাড়া ওজন কমানোর ৭টি সহজ উপায়

Eating Healthy‘আপনি কী ব্যায়াম করে বা জিমে গিয়ে ওজন কমানোর সময় পাচ্ছেন না?’, ‘ব্যায়াম করতে আপনার খুব একটা ভাল লাগে না?’,‘কিন্তু আপনি আপনার শরীরের অতিরিক্ত ওজন কমাতে চাইছেন?’ এ সবকয়টি প্রশ্নের উত্তর ‘হ্যাঁ’ হলে আপনাকে মানতে হবে কিছু নিয়ম কানুন। এই নিয়মগুলো ৩-৪ মাস মেনে চললে আপনার অতিরিক্ত ওজন কমে আসার খুব ভাল একটা সম্ভাবনা রয়েছে। আসুন নিয়মগুলো জেনে নিই।

১) ফাস্ট ফুড, কোমল পানীয় এড়িয়ে চলুনঃ

ফাস্ট ফুড নিয়ে মজার একটা কথা চালু আছে। ‘ফাস্ট ফুড তাই যা শরীরের ওজন খুব ফাস্ট বৃদ্ধি করে।’ মজা করে বলা হলেও, কথাটির সত্যতা ১০০% এতে কোন সন্দেহ নেই। যে কোন ধরণের ফাস্ট ফুড শরীরের ওজন খুব দ্রুত বৃদ্ধি করে এবং ফাস্ট ফুডের দ্বারা বৃদ্ধি ওজন শরীরের জন্যে ক্ষতিকর। সাথে কোমল পানীয়, দোকানে তৈরি জুস প্রভৃতিও ওজন বৃদ্ধি করে। তাই আপনাকে প্রথমেই এই খাবারগুলো বর্জন করতে হবে খুব কড়াকড়ি ভাবে।

২) খাবারের প্লেট ছোট আর গ্লাস বড় করুনঃ

এই কৌশলটি নিয়ে দেখতে পারেন। আপনি বাসায় খাবার জন্যে একটি ছোট আকারের প্লেট বেছে নিন। আর পানির গ্লাস লম্বা করুন। ছোট প্লেট থাকার কারণে স্বাভাবিকভাবেই আপনার খাবারের পরিমাণ আগের চেয়ে কমে আসবে। আর ওজন কমানোর জন্যে প্রচুর পানি প্রয়োজন যার জন্য বড় গ্লাস আপনাকে সাহায্য করবে।

৩) খাওয়ার আগে এক গ্লাস পানি পান করুনঃ

খাওয়ার আগে এক গ্লাস পানি পান করুন। এই পানিটুকু আপনার পাকস্থলীর একটি জায়গা দখল করে নিবে। ফলে আপনার পেটের একটা অংশ ভর্তি হবে আর স্বাভাবিকভাবেই আপনি আগের চেয়ে কম খাবেন। তবে খাওয়ার মাঝে পানি খাবেন না।

৪) গভীর রাতে খাওয়া নয়ঃ

পরিসংখ্যান বলে যারা রাত জাগে এবং গভীর রাতে রাতের খাবার খায় তাদের ওজন অন্যদের চেয়ে দ্রুত বাড়ে। এর কারণ হলো আপনি জেগে থাকলে, আপনার শরীর ক্যালরি পোড়াতে পারে না। এছাড়া রাতে যারা জেগে থাকে তারা স্বাভাবিকভাবেই অন্যদের চেয়ে একটু বেশি খেয়ে থাকে। তাই ঘুমানোর ২ ঘণ্টা আগে এবং রাত ১০টার মধ্যে অবশ্যই খেয়ে নেবেন।

৫) ধীরে ধীরে খানঃ

যারা খুব দ্রুত খাবার খায়, তারা অন্যদের চেয়ে বেশি খাবার খেয়ে থাকে। আপনি যদি ভাল করে চিবিয়ে ধীরে ধীরে খাবার খান, তবে আপনার ক্ষুধা আগেই মিটে যাবে আর যার ফলে কম খেলেও আপনার চলবে। আর চিবিয়ে খাওয়াটা দ্রুত হজমে সাহায্য করে। তাই ধীরে ধীরে খাবার খান।

৬) গল্প করতে করতে, টিভি দেখতে দেখতে খাওয়া নয়ঃ

গল্প গল্প করতে করতে খেলে এবং টিভি কম্পিউটারের সামনে বসে খেলে আপনার খাওয়ার প্রতি মনোযোগ কম থাকবে। ফলশ্রুতিতে আপনি স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি খাবেন। তাই সম্ভব হলে বন্ধু বান্ধবের সাথে রেস্টুরেন্টে কম বসুন আর বাড়িতে টিভি বা কম্পিউটারের সামনে খাওয়া বন্ধ করুন।

৭) কাজের ফাঁকে ফাঁকে ব্যায়ামঃ
ব্যায়াম করতে চান না ঠিক আছে। তবে আপনি কিছু পদক্ষেপ নিয়ে ব্যায়ামের কাজ চালাতে পারেন।

• লিফট ছেড়ে সিঁড়ি ব্যবহার করুন।
• কম দূরত্ব যেতে রিকশা নয়, হেঁটে যান।
• বাহন হিসেবে সাইকেল বেছে নিতে পারেন। যা আপনার ক্যালোরি পোড়াতে সাহায্য করবে।

টানা ৩-৪ মাস উপরের নিয়মগুলো মেনে চলুন। তারপরেও ওজন কমাতে না পারলে ডাক্তার বা কোন পুষ্টিবিদের শরণাপন্ন হন। তবে মনে রাখতে শরীর সুস্থ রাখতে এবং দ্রুত ওজন কমাতে ব্যায়ামের কোন বিকল্প নেই।

ওজন সংক্রান্ত আরো লেখা- ওজন কমানো সংক্রান্ত ৫টি ভ্রান্ত ধারণা, যা আজই পরিবর্তন করবেন

পরামর্শ.কম এ স্বাস্থ্য ও রূপচর্চা বিভাগে প্রকাশিত লেখাগুলো সংশ্লিষ্ট লেখকের ব্যক্তিগত মতামত ও সাধারণ তথ্যের ভিত্তিতে লিখিত। তাই এসব লেখাকে সরাসরি চিকিৎসা বা স্বাস্থ্য অথবা রূপচর্চা বিষয়ক বিশেষজ্ঞ পরামর্শ হিসেবে গণ্য করা যাবে না। স্বাস্থ্য/ রূপচর্চা সংক্রান্ত যেকোন তথ্য কিংবা চিকিৎসার জন্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের/বিউটিশিয়ানের শরণাপন্ন হোন।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।