আপনার সন্তান কি মাদকাসক্ত? জানুন লক্ষণ এবং উপসর্গগুলো

cover

মাদকাসক্ত সন্তান যে কোন বাবা- মা’র জন্যেই দুঃস্বপ্নের মত। সন্তানের মাদকাসক্তির (drug addiction) প্রথম পর্যায়ে ঠিক টের পাওয়া যায় না, আর এর ফলে সে পৌঁছে যায় আসক্তির আরও গভীরে। অথচ প্রথম পর্যায়ে যদি আপনি বুঝতে পারতেন যে আপনার সন্তান মাদকাসক্ত তাহলে নিশ্চয়ই এমন কোন ব্যবস্থা নিতেন যাতে মাদকের প্রতি তার আগ্রহ আসক্তিতে পৌঁছানোর আগেই কেটে যেতো। এখানে এমন কিছু লক্ষণের বর্ণনা (signs and symptoms) তুলে ধরছি যা দেখে সন্তানের মাদকাসক্তির প্রাথমিক পর্যায়েই ধারণা পেয়ে যাবেন। যদিও লেখাটি সন্তানকে নিয়ে, কিন্তু মানুষটি হতে পারে আপনার ভাই, বোন, বন্ধু বা আত্মীয়। মাদকাসক্তির প্রাথমিক লক্ষণগুলো সবার বেলাতেই একই।

এই লক্ষণগুলো খুবই গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করুন। এগুলো নজরে আসার পর এটা ভাববেন না যে সময়ের সাথে সাথে ব্যাপারগুলো ঠিক হয়ে যাবে।

শারীরিক লক্ষণ এবং উপসর্গ (Physical warning signs)Physical warning signs

১. চোখ লাল হয়ে থাকলে এবং চোখের মণি স্বাভাবিকের চেয়ে বড় বা ছোট দেখালে।
২. নাক দিয়ে প্রায়ই রক্ত পড়লে। (সাধারণ কোকেইন বা নিঃশ্বাসের সাহায্য গ্রহণ করতে হয় এমন মাদকের বেলায় এই লক্ষণ দেখা যায়)nose bleeding
৩. খাওয়ার প্রবণতা এবং ঘুমের সময়সীমায় পরিবর্তন চলে আসলে। শারীরিক ওজন হঠাৎ করেই বেড়ে বা কমে গেলে।
৪. চেহারা এবং পোশাকের পরিধান ও যত্নে অবনতি দেখা দিলে।
৫. শরীরে এমন কোন ক্ষত বা কাটা-ছেড়া দেখা গেলে যা সম্পর্কে তারা জানে না অথবা কিভাবে সে আঘাত পেলো তা আপনাকে বলতে না চাইলে।
৬. তাদের মুখে, শরীর বা পোষাকে অদ্ভুত বা অপরিচিত কোন গন্ধ পেলে।

আচরণগত পরিবর্তন (Behavioral warning signs)Behavioral warning signs

১. ক্লাস বা অফিস ঘন ঘন মিস করতে থাকলে, এসব প্রতিষ্ঠানে আকস্মিক কোন ঝামেলায় জড়িয়ে পরতে থাকলে।
২. ক্লাস বা অফিসে কাজের মানের অধঃপতন ঘটলে। খেলাধুলা, ব্যক্তিগত শখ ইত্যাদিতে আর কোন আগ্রহ হারিয়ে ফেললে
৩. তার সহকর্মী, শিক্ষক ও বন্ধুদের কাছ থেকে ঘনঘন নালিশ আসতে থাকলে।
৪. বাসায় রাখা টাকার হিসাব না মিললে। সাধারণত নেশার দ্রব্যের মূল্য পরিশোধের জন্য আপনার সন্তান টাকা, মূল্যবান সামগ্রী ও অলংকার ইত্যাদি চুরি করতে পারে।stealing money
৫. পরিবারের সদস্যদের সাথে ব্যবহারের পরিবর্তন আসলে। মাদকাসক্তির সময়গুলোতে সাধারণত তারা হয় খুব খিটখিটে মেজাজের হয়ে যায়, অথবা নীরব হয়ে থাকে। এ ধরণের আকস্মিক পরিবর্তনগুলো খুব সহজেই চোখে পড়ে।
৬. বেশির ভাগ সময় একা থাকতে চাইলে বা প্রাইভেসি সচেতন হয়ে গেলে। রুমের দরজা সারাদিন বন্ধ রাখলে এবং কথা বলার সময় আপনার চোখের দিকে না তাকিয়ে অন্য দিকে তাকালে।
৭. পুরানো বন্ধুদের পরিবর্তে নতুন নতুন বন্ধু চোখে পড়লে, প্রিয় আড্ডা দেয়ার জায়গাগুলো এড়িয়ে চললে।
৮. প্রায়ই কারো না কারো সাথে মারামারি, ঝগড়া ইত্যাদিতে জড়িয়ে পড়তে থাকলে।
৯. সব সময় রুমে এবং শরীরে পারফিউম, এয়ার ফ্রেশনার অতিরিক্ত মাত্রায় ব্যবহার করতে থাকল। (মাদক দ্রব্যের গন্ধ লুকানোর জন্য)
১০. চোখের লাল ভাব কাটানোর জন্য ড্রপ ব্যবহার শুরু করলে।

মানসিক পরিবর্তন (Psychological warning signs)Angry woman on phone

১. ব্যক্তিত্ব এবং আচরণে অজানা কারণে পরিবর্তন দেখা দিলে।
২. বিনা কারণে রেগে গেলে,হাসলে বা বিরক্ত হলে।
৩. কোন কাজ করার প্রেরণা হারিয়ে ফেললে, কাজে মনঃসংযোগ করতে না পারলে।
৪. কোন কারণ ছাড়াই ভয়ে বা আতংকে থাকলে।

এ ধরণের আরও লেখা পড়ুন

তথ্যসূত্রঃ

পরামর্শ.কম এ স্বাস্থ্য ও রূপচর্চা বিভাগে প্রকাশিত লেখাগুলো সংশ্লিষ্ট লেখকের ব্যক্তিগত মতামত ও সাধারণ তথ্যের ভিত্তিতে লিখিত। তাই এসব লেখাকে সরাসরি চিকিৎসা বা স্বাস্থ্য অথবা রূপচর্চা বিষয়ক বিশেষজ্ঞ পরামর্শ হিসেবে গণ্য করা যাবে না। স্বাস্থ্য/ রূপচর্চা সংক্রান্ত যেকোন তথ্য কিংবা চিকিৎসার জন্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের/বিউটিশিয়ানের শরণাপন্ন হোন।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।