ফটোশপে আঁকুন কার্টুন

cartoon-6বর্তমানে দৈনিক পত্রিকার রম্য সংখ্যা অথবা ফান ম্যাগাজিনে যে সকল কার্টুন ছাপানো হয়, তার প্রায় অধিকাংশেরই কালারিং করা হয় ফটোশপে। ফটোশপে রং করায় কার্টুনগুলো দেখতেও হয় অনেকটা ঝকঝকে,কার্টুনের মানও বেড়ে যায় অনেকটা। কার্টুনে রং তুলির ব্যবহার এখন অনেকটাই কমে এসেছে। নতুনরা যারা কার্টুন আঁকায় আগ্রহী, পত্রিকা বা ম্যাগাজিনে কার্টুন ছাপাতে চান, লেখাটি তাদের জন্য।

কার্টুন আঁকা থেকে শুরু করে শেষ পর্যন্ত পুরো প্রক্রিয়াটিকে ৬ টি ভাগে ভাগ করা হলো।
১. আইডিয়া
২. লাইন ড্রইং
৩. স্ক্যানিং
৪. কালারিং
৫. ডায়ালগ বসানো
৬. ইমেইলিং

  • আইডিয়া : প্রতিটা কার্টুনই একটা আইডিয়া বেইস করে আঁকা হয়। আইডিয়া আসতে পারে সাম্প্রতিক ঘটনা, কমন জোকস, মজার অভিজ্ঞতা অথবা চাহে তো, গুগল মামার কাছ থেকে। একটি চমৎকার আইডিয়া মাথায় এসে যেতে পারে যেকোনো সময়, পরবর্তিতে ভুলে যাবার চান্স থাকে। তাই কোন একটা আইডিয়া মাথায় আসার সাথে সাথেই টুকে রাখুন।
    cartoon-1
  • লাইন ড্রইং : হুম, এবার কার্টুন আঁকা শুরু। ফটোশপে সরাসরি ড্র করা যায়, তবে তার জন্য ড্রয়িং প্যাড ব্যবহার করা হয়। আপাতত আমরা সনাতন পদ্ধতিতেই কাজ চালাবো। এর জন্য প্রয়োজন, A4 সাইজের অফসেট কাগজ, পেন্সিল, ইরেজার, জেলপেন/তুলি-কালি। পেন্সিল দিয়ে প্রথমে যেই কার্টুন আঁকা হবে, তার একটা রাফ করি। সেই রাফ অংশটার উপর জেলপেন/তুলি-কালি দিয়ে পাকাপোক্ত আউটলাইন আঁকি। কালি শুকিয়ে গেলে পেন্সিলের বাড়তি দাগ ইরেজার দিয়ে মুছে ফেলি।
    cartoon-2
  • স্ক্যানিং : আপনার আঁকা কার্টুনটির এবার কম্পিউটারে প্রবেশের পালা। এর জন্য চাই একটি স্ক্যানার। বাজারে বিভিন্ন ব্রান্ডের স্ক্যানার পাওয়া যায়। এছাড়া এলাকার অনেক দোকানেই স্ক্যান করানো যায় সস্তায়। স্ক্যান করার সময় ছবি রেজুলেশান এবং সাইজ যাতে ভালো থাকে, সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।
    cartoon-4
  • কালারিং : আগেই বলেছি, রং তুলির বদলে কালারিং এখন ফটোশপেই করা হয়। ফটোশপের যেকোনো ভার্শন দিয়েই কালারিং করা যায়। প্রথমে আপনার স্ক্যান করা কার্টুনটি ওপেন করুন। এডজাস্টমেন্ট অপশনে গিয়ে ব্রাইটনেস, কনট্রাস্ট বাড়িয়ে/ কমিয়ে নিন যতটুকু আপনার প্রয়োজন। এবার নতুন একটি লেয়ার নিন, মাল্টিপ্লাই মুড চুজ করুন(চিত্রানুযায়ী)। এবার পছন্দমত ব্রাশ, কালার সিলেক্ট করে কালারিং করুন।
    cartoon-5
  • ডায়ালগ বসানো : আপনি যেই আইডিয়ার উপর বেইস করে কার্টুনটি এঁকেছেন, সেই আইডিয়ার উপর ভিত্তি করেই ডায়ালগ চিন্তা করুন। বিভিন্ন কার্টুনের ডায়ালগ দেখলেই, এ সম্পর্কে একটি ধারনা পেয়ে যাবেন। ফটোশপে কিছু রেডিমেইড ডায়ালগ বক্স/বাবল দেয়া থাকে। তারই একটি বেছে নিতে পারেন।ডায়ালগ বক্স বসানোর পর তাতে ডায়ালগ বসান। তবে লক্ষ্য রাখতে হবে লেখার অংশটি যেন স্পষ্ট বোঝা যায়।
    cartoon-6

সকল রম্য ম্যাগাজিনেই ২য়/৩য় পৃষ্ঠায় তাদের ইমেইল এড্রেস দেয়া থাকে পাঠকদের জন্য। ইমেইলের মাধ্যমে আপনার কার্টুনটি পাঠানো যেমন সহজ হবে, ছাপানোর সম্ভাবনাও থাকে বেশি। ইমেইলে আপনার কার্টুনের শিরোনাম, আপনার নাম, ঠিকানা, ফোন নম্বর লিখে কার্টুনটি এটাচ করে পাঠিয়ে দিন ম্যাগাজিন/পত্রিকার ইমেইল এড্রেসে।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।