কাজের ক্ষেত্রে দীর্ঘসূত্রতা থেকে বের হওয়ার উপায়

procrastinateProcrastination বা দীর্ঘসুত্রতা হল যে কাজটি সম্পন্ন করা প্রয়োজন তা এড়িয়ে যাওয়া বা পরিহার করা। এর ফলে অপরাধবোধ , অপর্যাপ্ততা, বিষণ্ণতা ও আত্মসন্দেহ অনুভূতি হতে পারে। এটি আমাদের কর্মজীবনে ও ব্যাক্তিগত জীবনে প্রভাব ফেলে। Procrastination এর কারণ হল পরিস্থিতিকে ভয় পাওয়া, আশা ছেড়ে দেওয়া যে পরিস্থিতি পরিবর্তিত বা আক্রান্ত হতে পারে, ব্যর্থ হওয়ার ভয়, অতিরিক্ত ব্যস্ত হওয়া, সিদ্ধান্ত নিতে না পারা, অতিরিক্ত কাজের চাপ, ক্লান্তি, যে কাজ পছন্দ করি না তা এড়িয়ে যাওয়া। ফলে কাজের চাপ আর বাড়তে থাকে। কাজটি করা হয়ে উঠে না।

  • যে সমস্যাগুলো আপনাকে পরাজিত করছে বা কাজে ব্যাঘাত ঘটাচ্ছে তা চিনুন। যেমন- ভয়, উদ্বেগ, মনোযোগের সমস্যা, সময় ব্যবস্থাপনার অভাব, সিদ্ধান্তহীনতা এবং নিখুঁত হওয়ার প্রবণতা।।
  • আপনার নিজস্ব লক্ষ্য, শক্তি ও দুর্বলতা, মূল্যবোধ এবং অগ্রাধিকার খুঁজুন।
  • কাজের সাথে আপনি যে মূল্যবোধ অনুভব করেন তার সাথে তুলনা করুন। আপনার মূল্যবোধ কি আপনার কাজের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ ?
  • নিজেকে নিয়মানুবর্তী করুন এবং  পরিকল্পিতভাবে সময় ব্যবহার করুন। কোনটি গুরুত্বপূর্ণ বা আগে করা দরকার সেদিকে অগ্রাধিকার দিন।
  • বড় বড় কাজগুলোকে ছোট ছোট করে ভাগ করুন। যেমন পড়াশুনা বা কাজের ক্ষেত্রে । আপনার কাজটি সম্পন্ন করতে ১ ঘণ্টা লাগবে ,সেক্ষেত্রে ১০ মিনিট করে বিরতি দিন। ২-৩ ঘণ্টা টানা করার চেয়ে বিরতি দিয়ে করাটা ভালো।
  • কাজ সম্পন্ন হওয়ার পর নিজেকে পুরস্কৃত করুন। যেমন কোথাও বেড়াতে যাওয়া, আড্ডা দেয়া।
  • নিজেকে অনুপ্রাণিত করুন। যে কাজে সফলতা অর্জন করেছেন সেক্ষেত্রে গুরুত্ব দিন। সাফল্যের প্রতি অনুপ্রাণিত করুন। রিমাইন্ডার এবং তালিকা তৈরি করুন।
  • বাস্তববাদী দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে লক্ষ্য তৈরি করুন যা আপনি অর্জন করতে পারেন এবং যা আপনার পক্ষে করা সম্ভব।
  • আপনার পরিবেশ কিছুটা পরিবর্তন করুন। গোলমাল বা চিত্তবিক্ষেপ কমান বা দূর করুন। পর্যাপ্ত আলো নিশ্চিত করুন। প্রয়োজনীয় উপকরণ হাতের কাছে রাখুন।
  • অন্যদেরও সহায়তা নিন কাজটি সম্পন্ন করার ক্ষেত্রে।
  • দীর্ঘসূত্রিতার মূলে কি রয়েছে তা খুঁজে বের করুন। সবার দীর্ঘসূত্রিতা একরকম নয়। দীর্ঘসূত্রিতার মূলে কি কারণ রয়েছে তা খুঁজে বের করা দরকার।
  • আপনার কি কোন অযৌক্তিক প্রত্যাশা বা দুশ্চিন্তা ছিল, আপনি কাজটি কিভাবে শুরু করেছিলেন, কিভাবে শেষ হল সে সম্পর্কে। অলসতাও এর প্রধান কারণ।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।