কনটেন্ট রাইটিং এর ক্ষেত্রে আত্মবিশ্বাস ঘাটতি কিভাবে কাটিয়ে উঠবেন

পেশা হিসেবে “কনটেন্ট রাইটিং” একটি সৃজনশীল পেশা। এ পেশায় দক্ষতা-যোগ্যতার পাশাপাশি আপনার সৃজনশীলতাকেও কাজে লাগাতে হবে। বিষয়টা একেবারে খুব জটিল কিংবা ‘অসাধ্য সাধন’ পর্যায়ের কিছু, তা বলছি না। তবে কিছু বিষয় আপনাকে আয়ত্ব করে নিতে হবে। দীর্ঘসময় ধরে কাজ করলে বিষয়গুলো এমনিতেই আয়ত্বে এসে যায়। কিন্তু শুরুতে বেশ কিছু সমস্যা আপনাকে ভোগাবেই।

confident

আজকের এই লেখাটির পেছনে ছোট্ট একটি উদ্দেশ্য আছে। একটা সমস্যা নিয়ে আলোকপাত করবো। যা কনটেন্ট রাইটিং এর ক্ষেত্রে শুরুর দিকে সবচেয়ে বেশি ভোগায়। তা হলো – “Lack of Confidence” অর্থাৎ “আত্মবিশ্বাসের ঘাটতি”। কনটেন্ট রাইটিং শুরু করেও আত্মবিশ্বাসের ঘাটতির কারণে অনেকে ছেড়ে দেয়। অথচ তাদের যোগ্যতা ছিলো এবং আউটপুট ঠিক-ঠাকই ছিলো। অথচ বড় সমস্যাটা রয়ে গেছে তার মনে। নতুনদের ক্ষেত্রে ক্যারিয়ার নষ্ট করে দেয়ার জন্য এই সমস্যাটাই যথেষ্ট।

বহুল আলোচিত এই সমস্যাটি সবক্ষেত্রেই হয়। তবে আমি শুধু আলোচনা করবো কনটেন্ট রাইটিং এর সময় আত্মবিশ্বাসের ঘাটতি নিয়ে। আত্মবিশ্বাসে এই ঘাটতি বা Lack of Confidence এর পেছনে বেশ কিছু কারণ আছে। একজন নতুন কনটেন্ট রাইটার যদি এই কারণগুলো উদ্ধার করতে পারে, তবে সহজেই সমস্যাগুলো কাটিয়ে উঠা সম্ভব।

মজার বিষয় হচ্ছে, কনটেন্ট লিখতে গিয়ে আত্মবিশ্বাসে কেন সমস্যা হচ্ছে, সেটাই অনেকে ধরতেই পারে না।
হ্যাঁ। এজন্যই লেখাটা লিখলাম। আমি কয়েকটা পয়েন্ট বলে দিচ্ছি। যে সমস্যাগুলো আপনি নিজেই তৈরি করেন, এবং নিজেই এর ভেতর হাবু-ডুবু খান। তারপর একসময় তলিয়ে যান। আজকে শুধু সমস্যাগুলো বলছি। সাথে সংক্ষিপ্ত পরামর্শ। আগামীতে সময় করে বিস্তারিত সমাধানগুলো লিখবো।

সমস্যা-প্রশ্ন-সন্দেহ-দ্বিধা-দ্বন্দ্ব এবং আমি জর্জরিত :

  • সমস্যা- ১: কোন ধরনের কনটেন্ট লিখছি, এর প্যাটার্ন কি হওয়া উচিত?- এ ব্যাপারে ধারণা অপরিষ্কার।
  • সমস্যা- ২: কনটেন্ট লেখার প্রয়োজনীয় তথ্য বা ইনফরমেশনগুলো কোথায় পাবো, কিভাবে ব্যবহার করবো? – দ্বিধা-দ্বন্দ্বে জর্জরিত।
  • সমস্যা- ৩: সংগৃহীত তথ্যগুলো কি আমার লেখা কনটেন্ট টপিকসের সাথে খাপ খায়?- এ ব্যাপারে সন্দিহান।
  • সমস্যা- ৪: কনটেন্টে কোন বিষয়ে পর কোন বিষয়টার আলোচনা করবো? – এটা নিয়ে হাবুডুবু খাচ্ছি।
  • সমস্যা- ৫: কনটেন্টে যে ইংরেজীগুলো লিখছি, সেগুলো কি ঠিক হচ্ছে, নাকি ভুল আছে? – এই চিন্তায় মাথা-ব্যাথা শুরু।
  • সমস্যা- ৬: কনটেন্টটা তো লিখলাম। কিন্তু এটা দেখে কেউ যদি রিজেক্ট করে দেয়? কিংবা হাসাহাসি করে! – হীনমন্যতায় ভোগা।

এগুলোর পূর্ণ সমাধান এই ক্ষুদ্র পরিসরে লেখা সম্ভব না। তবুও খুব সংক্ষেপে-

কিছু পরামর্শ:

  • সমাধান – ১: লেখার শুরুতেই কনটেন্ট প্যাটার্ন ঠিক করুন, কনটেন্ট আউটলাইন স্কেচ করুক।
  • সমাধান – ২: কনটেন্টের জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য কিভাবে পাবেন? এর জন্য এই লিংকে দেখুন ।
  • সমাধান – ৩: তথ্য বেশি করে সংগ্রহ করবেন কিন্তু ব্যবহার করবেন প্রয়োজন মতো, কাট-ছাট করে।
  • সমাধান – ৪: তথ্যগুলো নির্বাচন করার পর, আপনি এগুলো যাচাই করুন। তারপর কোনটা আগে, কোনটা পরে আনবেন সেটা নির্ধারন করুন।
  • সমাধান – ৫: শুরুতে ইংরেজী সমস্যার কথা ভুলে যান। গ্রামার বিষয়টা মাথা থেকে দূর করে দিন। তবে গ্রামার চেকার টুলসগুলো ব্যবহার করুন। ফ্রি হিসেবে Ginger ব্যবহার করতে পারেন। ডাউনলোড করুন এখান থেকে ।
  • সমাধান – ৬: এক্ষেত্রে আমি শুধু বলবো, Avoid perfectionism ! আপনাকে Perfect হতে হবে এমনটা কখনওই ভাববেন না। লিখে যান। Exercise আপনাকে পর্যায়ক্রমে perfection এর দিকে নিয়ে যাবে।

 পরিশেষে:
খুব ছোট পরিসরে লিখার ইচ্ছে ছিলো। তবুও একটু বড় হয়ে গেলো। কনটেন্ট রাইটার হতে হলে আপনাকে অনবরত লিখে যেতেই হবে। পাশাপাশি Study বা অধ্যয়ন। এর কোন বিকল্প নেই। শুরুতে হোক না আপনার কনটেন্টগুলো লো-কোয়ালিটি। সমস্যা কি? কিছুদিন এই কনটেন্টগুলোই আপনাকে শিখাবে কিভাবে হাই-কোয়ালিটি কনটেন্ট লিখতে হয়। বাকী সব ভুলে যান। দ্বিধা-দ্বন্দ ছেড়ে ফেলুন। নিজের লেখাকে নিজে ভালবাসতে শিখুন। কনটেন্ট লেখার আগে ভালো করে হোমওয়ার্ক করুক। দেখবেন, কনটেন্টই আপনাকে বলে দিচ্ছে, কখন কি করতে হবে। কিভাবে ইমপ্রুভ করতে হবে,কিংবা কোনটা কনটেন্টের উপযুক্ত প্যাটার্ন ইত্যাদি।

লেখাটা শেষ করছি Norman Vincent Peale এর একটি উক্তি দিয়ে-

“Believe in yourself! Have faith in your abilities! Without a humble but reasonable confidence in your own
powers you cannot be successful or happy.”

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।