যেভাবে একজন পেশাদার ফটোগ্রাফার হয়ে উঠবেন

1549372_709603129085730_2904815643763775730_n
ছবি কৃতজ্ঞতা-চৌধুরী ফাহাদ

বর্তমানে অনেকেই ফটোগ্রাফি পেশার দিকে ঝুঁকছে। এমন খুব কম পেশাই আছে যেখানে বয়স আর ডিগ্রী খুব বেশি গুরুত্বপূর্ণ নয়। দরকার প্রখর দৃষ্টিশক্তি, কাজটির জন্যে ভালোবাসা আর সৃজনশীল চিন্তাভাবনা। সাথে যোগ করতে হবে আরো কয়েকটি বিষয়। সে বিষয়গুলো জানার জন্যে এই লেখাটি সাহায্য করতে পারে আপনাকে।

১) ক্যামেরা সম্পর্কে প্রাথমিক ধারণা নিনঃ
অনেকেরই একটি ভুল ধারণা রয়েছে প্রফেশনাল ফটোগ্রাফার হওয়ার জন্যে প্রথমেই একটি দামি ক্যামেরা কেনা দরকার। বিষয়টি ঠিক নয়। হ্যাঁ,এটা ঠিক একটি দামি, ভাল ক্যামেরা আপনার ব্যবসায়ের উন্নতির জন্যে দরকার। তবে প্রথমে একটি সাধারণ ক্যামেরা দিয়ে শুরু করতে পারেন। দামি ক্যামেরা কেনার আগে ক্যামেরার ভেতরের এবং বাইরের যন্ত্রাংশ সম্পর্কে নিখুঁত ধারণা থাকতে হবে। বলা হয়ে থাকে যে, ফটোগ্রাফিকে পেশা হিসেবে নেয়ার আগে আপনার ক্যামেরা আর ক্যামেরার যন্ত্রাংশকে আপনার হাতের তালুর মতই চিনে নিতে হবে।

২) ফটোগ্রাফি সম্পর্কে পড়ুন, জানুনঃ
জানতে হলে, পড়তে হবে। বিভিন্ন বই, ম্যাগাজিন, ওয়েবসাইটে ফটোগ্রাফি নিয়ে প্রচুর লেখা আছে। এসব পরে ফটোগ্রাফির মৌলিক ধারণাগুলি নিতে হবে। এখানে কিছু দেয়া হলো।

  • বইঃ Master Guide for Professional Photographers By Patrick Rice, The Art of Photography By Bruce Barnbaum, Photo Inspiration: Secrets Behind Stunning Images
  • ম্যাগাজিনঃ View camera, Macworld
  • সাইটঃ The Secret: What Makes a Great Photo http://www.kenrockwell.com/tech/basics.htm


৩) পোর্টফলিও সমৃদ্ধ করুনঃ

আপনার বন্ধু বান্ধব বা আত্মীয়স্বজন ছাড়া বাইরের কেউ যখন আপনার সাথে কাজ করতে আসবে, তখন অবশ্যই তাদেরকে আপনার কাজের নমুনা দেখাতে হবে। এজন্যে দরকার আপনার একটি সমৃদ্ধ পোর্টফলিও। পোর্টফলিওতে আপনি বিভিন্ন বিষয়ের উপর ছবি রাখবেন এবং ছবির সংখ্যা যেন ১০ টির বেশি না হয়। এই ১০ টি ছবির জন্যে আপনার সেরা ছবিগুলো বাছুন।

৪) ছবি তুলুন প্রতিদিনঃ

আপনার দক্ষতাকে শান দেয়ার জন্যে প্রতিদিন ছবি তুলুন। কোন পরিকল্পনা করে নয়। প্রতিদিন আমাদের আশেপাশে ঘটে যাওয়া নানা বিষয় হতে পারে আপনার ছবির বিষয়বস্তু।

৫) বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশ নিনঃ
বর্তমানে ফটোগ্রাফি নিয়ে বিভিন্ন প্রতিযোগিতা হচ্ছে। এসব প্রতিযোগিতায় অংশ নিন। আপনার ছবি যদি পুরস্কৃত হয় তবে এটি আপনার জন্যে একটি ভাল বিজ্ঞাপন হবে। আপনার পোর্টফলিওতে এই বিষয়টি উল্লেখ করতে পারবেন।

৬) কোন বিভাগে দক্ষ তা ভাবুনঃ

আপনি কোন ধরণের ছবি তুলতে ভালোবাসেন বা কোন ধরণের ছবি ভাল তুলেন তা ভেবে বের করুন। চাইলে প্রথমে বিভিন্ন বিষয়ের উপর প্রচুর ছবি তুলতে পারেন। এরপর ঠিক করুন কোন দিকে যাবেন। যে ধরণের ছবি তুলতে আপনার ক্লান্তি অনুভব হয় না বেছে নিন সেই বিভাগটি।

৭)আর্থিক পরিকল্পনা যেমনটি হবেঃ

  • মূলধনঃ প্রাথমিক খরচগুলোর জন্যে নিশ্চয় আপনার একটি বাজেট আছে। তাতে না হলে সাহায্য নিন বন্ধু বান্ধব আত্মীয়স্বজনের।
  • হিসাব লিপিবদ্ধ করুনঃ কম্পিউটারে বা ডাইরিতে সব খরচ, আয় নিখুঁতভাবে লিপিবদ্ধ করে রাখুন। তাহলে একটি নির্দিষ্ট সময় শেষে আপনি আপনার লাভ বা ক্ষতি বের করতে পারবেন।
  • এক বছরের খরচঃ আপনি যদি আপনার চাকরি ছেড়ে এই পেশায় পাকাপাকিভাবে আসতে চান তবে নিশ্চিত করুন যে আপনার এক বছর খরচ করার মত টাকা আছে। তাহলে আপনি নিশ্চিতভাবে ফটোগ্রাফিতে মন দিতে পারবেন।

৮) আপনার লক্ষ্য স্থির করুনঃ
আপনি যেহেতু সিদ্ধান্ত নিয়েই ফেলেছেন ফটোগ্রাফিতে আপনার ক্যারিয়ার গড়বেন তাই প্রথমেই কিছু লক্ষ্য স্থির করুন। একটি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে আপনি  কয়টি ছবি তুলবেন, কয়টি ছবি বিক্রি করবেন অথবা কত টাকা আয় করবেন তা স্থির করুন। সময় নয়, একটি নির্দিষ্ট তারিখ ঠিক করুন। “আগামী দুই মাসে আমি ২৫ টি ছবি তুলবো” এইভাবে স্থির না করে, স্থির করুন “আগামী ৩১ শে আগস্টের মধ্যে আমি ২৫ টি ছবি তুলবো।”


৯) বৈধ চুক্তিপত্র তৈরি করুনঃ

কারো সাথে কোন ফটো শুটে যাওয়ার আগে চুক্তিপত্রে স্বাক্ষর করিয়ে নিন। যেটিতে আপনার ব্যবসায়ের নাম, মোট টাকা, অগ্রিম টাকা ইত্যাদি সম্পর্কে তথ্য থাকবে।

১০) আপনার কাজের মূল্য ঠিক করুনঃ
আপনি কি প্রতি ছবি, প্রতি ঘণ্টা নাকি একটি পুরো অনুষ্ঠান হিসেবে কাজ করবেন তার উপর আপনার কাজের মূল্য নির্ধারণ করুন। আশেপাশের অন্যান্য ফটোগ্রাফারদের রেট সম্পর্কে জেনে নিতে পারেন। তবে মাথায় রাখবেন খুব বেশি আর খুব কম মূল্য নির্ধারণ করবেন না।

এছাড়াও বিজ্ঞাপনের বিষয়টিও মাথায় রাখতে হবে। ওয়েবসাইট, বিজনেস কার্ড, ফেসবুক পেইজের মাধ্যমে আপনার নাম ছড়িয়ে দিন। সবসময় সাথে আপনার কার্ড আর মোবাইলে বা ল্যাপটপে আপনার কাজের নমুনা রাখুন। নিজের লক্ষ্য স্থির করে সামনে এগিয়ে যান। প্রথমে নানা বাধা বিপত্তি আসবেই। মনে রাখবেন, পথ চলা যদি সহজ হয় তবে পথটি ভুল। কঠিন পথচলার পরেই আসে সফলতার ষ্টেশন। সফলতার ষ্টেশনে দ্রুত পৌঁছান এই কামনা রইলো।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।