কেন আপনার খাবারের তালিকায় রাখবেন পুদিনা পাতা?

how to grow mint at homeপুদিনা (mint) এক প্রকারের গুল্মজাতীয় উদ্ভিদ। এর পাতা সুগন্ধি হিসাবে রান্নায় ব্যবহার করা হয়। কিন্তু শুধু রান্নার স্বাদ বাড়ানো পুদিনা পাতার অন্যতম গুণ নয়। আমাদের কাছে সুপরিচিত এই পুদিনা পাতার রয়েছে আরও অনেক অসাধারণ গুণাবলী যা আমরা অনেকেই জানিনা।

প্রাচীনকাল থেকেই ঔষধি হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে পুদিনা। তবে শুধু খাবার আর ঔষধি গুনই নয় রূপচর্চায়ও পুদিনা পাতার রয়েছে অনেক অবদান। আসুন জেনে নিই এই উপকারি প্রাকৃতিক উপাদানের কিছু অসাধারণ গুণাবলী।

বদহজম থেকে রক্ষা (relieves indigestion)

পুদিনা পাতা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ফাইটোনিউট্রিয়েন্টসের ভরপুর। যা কিনা আমাদের পেটের বদহজম উপশমে ভূমিকা রাখে। তাই পেটে হজমজনিত গোলযোগ দেখা দিলে পুদিনার চা বানিয়ে পান করুন। বদহজম সেরে যাবে।

ব্যথা সারাতে (fights pains)

পুদিনা পাতার আরও একটি অন্যতম গুণ হল ব্যথা উপশম। পুদিনা পাতার রস তাৎক্ষণিক ব্যথানাশক উপাদান হিসেবে কাজ করে। পুদিনা পাতার রস চামড়ার ভেতর দিয়ে স্নায়ুতে পৌঁছে স্নায়ু শান্ত করতে সহায়তা করে। মাথা ব্যথা হলে পুদিনা পাতার চা পান করতে পারেন। অথবা তাজা কিছু পুদিনা পাতা চিবিয়ে খেতে পারেন। জয়েন্টে ব্যথায় পুদিনা পাতা বেটে প্রলেপ দিতে পারেন।

আপনাকে দেয় উজ্জ্বল ও ব্রণ মুক্ত ত্বক (glowing and acne free skin)

পুদিনা পাতায় রয়েছে অসাধারণ গুণাবলী যা আপনাকে দ্যুতিময় ও ব্রণ মুক্ত ত্বক উপহার দেবে। যাদের ত্বকে ব্রণের সমস্যা রয়েছে তারা ত্বকে পুদিনা পাতার রস লাগান ব্রণ ও ব্রণের দাগ চলে যাবে। এছাড়াও পুদিনা পাতার নির্যাস ত্বকে লাগানোতে ত্বক মসৃণ আর উজ্জ্বল হয়ে উঠে।

মুখের সংক্রমণ থেকে রক্ষা করতে (fight oral infections)

পুদিনা পাতার অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান আমাদের মুখের স্বাস্থ্য রক্ষা করে। এটি মুখে দুর্গন্ধ হওয়া থেকে শুরু করে মুখ ও দাঁতের যেকোন সংক্রমণজনিত রোগের প্রাদুর্ভাব কমিয়ে দেয়। সামান্য কয়েকটি পুদিনা পাতা চিবিয়ে খেলে আমরা আমাদের মুখের সমস্যা থেকে দূরে থাকতে পারি।

কাশি ও অ্যাজমা থেকে রক্ষা করে (relieves cough and asthma)

পুদিনা পাতার রস শ্বাসপ্রশ্বাসের নালী পরিষ্কার করার কাজে সহায়তা করে। ফলে যারা অ্যাজমা এবং কাশির সমস্যায় পড়েন তাদের সমস্যা তাৎক্ষণিক উপশমে পুদিনা পাতা বেশ কার্যকরী। খুব বেশি নিঃশ্বাসের এবং কাশির সমস্যায় পড়লে পুদিনা পাতা গরম পানিতে ফুটিয়ে সেই পানির ভাপ নিন এবং তা দিয়ে গার্গল করার অভ্যাস তৈরি করুন।

পিরিয়ডজনিত ব্যথা কমাতে সাহায্যকারী (relieves the pain associated with menstrual cramps)

পুদিনা পাতার আরও একটি অনন্য গুণ হলো মেয়েদের পিরিয়ডের ব্যথা কমানো। যখনই পিরিয়ড জনিত ব্যথা অনুভব করবেন সাথে সাথে পুদিনা পাতার রস গ্রহণ করুন অথবা পুদিনা পাতার চা বানিয়ে পান করুন। আবার আপনি পুদিনা পাতা দিয়ে পানি ফুটিয়ে সেই পানিও পান করতে পারেন।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে (boosts immunity)

পুদিনা পাতার কার্যকরী উপাদান আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে। প্রতিদিন আপনি যদি শুধুমাত্র কয়েকটি করে পুদিয়া পাতা চিবিয়ে খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে পারেন তাতে করেই সাধারণ রোগ জীবানু আপনার থেকে দূরে থাকবে।

মানসিক চাপ ও হতাশা কমাতে (beats stress and depression)

যেকোন ধরণের মানসিক চাপ ও হতাশা কমাতে পুদিনা পাতার গুণাবলী আপনাকে মুগ্ধ করবে। প্রতিদিন পুদিনা পাতার চা পান করাই আমাদের থেকে হতাশা, ক্লান্তি ও মানসিক চাপ দূরে থাকে।

ক্যান্সার প্রতিরোধ (helps fight cancer)

আশ্চর্যজনক হলেও সত্যি যে পুদিনা পাতা ক্যান্সার প্রতিরোধের ক্ষমতা রাখে। পুদিনা পাতার পেরিলেল অ্যালকোহল যা ফাইটোনিউরিয়েন্টসের একটি উপাদান দেহে ক্যান্সারের কোষ বৃদ্ধিতে বাধা প্রদান করে।

দেখলেন তো সামান্য পুদিনা পাতার কত গুণ। এই উপকারি পাতাটি নিশ্চয় এখন কেবল রান্নার স্বাদ বর্ধক হিসেবে ব্যবহার করবেন না। বরং অন্যান্য কাজেও নিঃসঙ্কচে ব্যবহার করবেন।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।