শসার অসাধারণ কিছু স্বাস্থ্য উপকারিতা

Health Benefits of Cucumberআমাদের কাছে শসা (cucumber) খুব সাধারণ ও সুপরিচিত একটি সবজির নাম। টমেটো, বাঁধাকপি ও পেঁয়াজের পর বিশ্বের চতুর্থ বৃহৎ উৎপাদিত সবজি হলো শসা। কম ক্যালোরি ও ফ্যাটের কারণে শসা আমাদের খাবারের তালিকায় একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান দখল করে রয়েছে।  শসা ভিটামিন কে, সি এবং বিভিন্ন বি ভিটামিন এর চমৎকার উৎস।

তাছাড়া সোডিয়াম, কপার, অ্যামিনো অ্যাসিড, কার্বোহাইড্রেট, চিনি, দ্রবণীয় এবং অদ্রবণীয় ফাইবার, পটাসিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ, ফ্যাট, ফসফরাস, ম্যাগনেসিয়াম এবং সিলিকার একটি বড় উৎস হল শসা। আসুন এতো এতো পুষ্টি উপাদানের অধিকারী ফলটির কিছু অসাধারণ স্বাস্থ্য উপকারিতা নিয়ে কথা বলি।

শরীরে পানির যোগান দেয় (hydrates the body)

শসার ৯৫% উপাদান হচ্ছে জলীয়, যা আমাদের শরীরে শুষ্কতা রোধ করে পানির পরিমাণ বাড়িয়ে তোলে। এছাড়া শসা ভিটামিন সি ও এ সহ ফাইবার এবং ফলিক অ্যাসিড এর একটি বিরাট উৎস যা আমাদের শরীরের ক্ষতিকর টক্সিন নির্গত করতে সাহায্য করে।

ক্যান্সার প্রতিরোধ (fights cancer)

শসার আরও একটি অন্যতম গুণ হল ক্যান্সার প্রতিরোধক উপাদান। এর অ্যান্টি-ক্যান্সার উপাদান আমাদের শরীরকে ক্যান্সারের ক্ষতিকর সেল গড়ে তুলতে বাধা প্রদান করে। তাই ক্যান্সার রোধে কাঁচা শসা চিবিয়ে খেতে পারেন অথবা শসার জুস করে পান করতে পারেন

নিঃশ্বাসে দুর্গন্ধ দূর করতে (controls bad breath)

শসা শ্বাসের দুর্গন্ধ ও দূর করতে সাহায্য করে। কাঁচা শসা চিবিয়ে খাওয়ার ফলে মুখের দুর্গন্ধ সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়া নষ্ট হয়ে যায়। এছাড়া শসা পেটের অতিরিক্ত গ্যাস কমিয়ে দেয় যা কিনা শ্বাসে দুর্গন্ধ সৃষ্টির অন্যতম কারন। তাই নিঃশ্বাসে দুর্গন্ধ দূর করতে কাঁচা শসা চিবিয়ে খান।

রক্তে সুগারের মাত্রা কমিয়ে দেয় (lowers blood sugar)

শসাই ইনসুলিন বৃদ্ধিকারী হরমোন বিদ্যমান। যার কারণে শাসা খেলে আপনাআপনি আমাদের শরীরে ইনসুলিনের মাত্রা বাড়িয়ে সুগারের মাত্রা কমে যাই। তাই শরীরে সুগারের মাত্রা কমিয়ে ফেলতে ডায়াবেটিস আক্রান্ত রোগীরা প্রতিদিন একটি করে শসা বা শসার জুস পান করতে পারেন।

ব্লাড প্রেশার নিয়ন্ত্রণ(regulates blood pressur)

শসাই প্রচুর পরিমাণে পটাসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম ও ফাইবার বিদ্যমান। যা ব্লাড প্রেশার নিয়ন্ত্রণ করে। যারা ব্লাড প্রেশার নিয়ে যন্ত্রনাতে আছেন তারা কাঁচা শসা চিবিয়ে বা জুস করে খেতে পারেন।

এতোসব স্বাস্থ্য উপকারিতার জন্য শসাকে সুপারফুডের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। তাই আপনার রোজকার খাবারের তালিকায় আজই শসাকে অন্তর্ভুক্ত করুন।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।