যে সব কারণে খেতে পারেন গাজরের জুস

carrotগাজর (carrot) পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম ও অরগানিক সোডিয়ামের একটি অসাধারণ উৎস। এছাড়া গাজরে ভিটামিন এ, সি, বি, কে,বি১ ও বি৬ প্রচুর পরিমাণে ভরপুর থাকে। আর এতোসব পুষ্টি উপাদান (nutrients) একটি জিনিসে থাকায় এটি আমাদের স্বাস্থ্যর জন্য ভীষণ উপকারী। গাজরের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট আমাদের শরীরের নানা ধরণের রোগ প্রতিরোধ করে, প্রতিদিন একগ্লাস গাজরের জুস আপনাকে গাদা গাদা ভিটামিন সাপ্লিমেন্ট এর থেকেও বেশী কাজ করবে।

স্বাস্থ্য রক্ষায় গাজরের জুসের পুষ্টিগুণ (health benefits of carrot juice)

  • গবেষণায় দেখা গেছে প্রতিদিন একটি করে গাজর আপনার খাবারের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করলে ক্যান্সারের (cancer) ঝুঁকি কমে যায়। তাই প্রতিদিনের খাবারের তালিকায় রাখতে পারেন গাজর।
  • গাজরের জুস (juice) বানিয়ে খেতে পারেন। এটা রক্তে কোলেস্টরলের মাত্রা স্বাভাবিক রাখে। গাজরের জুসে উপস্থিত ভাইটাল অরগানিক উপাদান আপনার রক্তে সুগারের পরিমাণ নিয়ন্ত্রন করে।
  • আপনি যদি ধূমপায়ী (smoker) হন তাহলে প্রতিদিন একগ্লাস গাজরের জুস গ্রহণ করুন, এতে করে কিছুটা হলেও ধূমপানের বিষ থেকে আপনার জীবন রক্ষা করবে।
  • সদ্য মা হওয়া নারীরা যদি প্রতিদিন একগ্লাস গাজরের জুস খায় তাহলে দুধের পরিমাণ বৃদ্ধি পায়। এজন্য নতুন মায়েদের খাবার তালিকায় অবশ্যই গাজর/ গাজরের জুস রাখা উচিত।
  • গর্ভবতী নারীরা (pregnant woman) বিশেষ করে গর্ভাবস্থার শেষের কয়েক মাস নিয়মিত গাজরের জুস গ্রহণ করুন। এতে অনাগত সন্তানের সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত হয় এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেড়ে যায়।
  • পিরিয়ড সমস্যায় আক্রান্ত নারীরা নিয়মিত একটু করে গাজরের জুস গ্রহণ করায় নারীদের পিরিয়ড নিয়মিত হয় ও পিরিয়ডের নানাবিধ জটিলতা হ্রাস পায়।
  • গাজরের জুস গ্রহণ করায় আপনার লিভার পরিষ্কার থাকে এবং রক্তে বিষাক্ত উপাদানের মাত্রা কমিয়ে দেয়।
  • ত্বক সুন্দর রাখতে খেতে পারেন গাজরের জুস। গাজরের ভিটামিন সি (vitamin C) ত্বকের যত্নে খুবই উপকারী।
  • গাজরে উপস্থিত ভিটামিন-কে শরীরে প্রোটিনের মাত্রা বৃদ্ধি করে, তাছাড়া এটি শরীরে কালসিয়ামের মাত্রা বাড়িয়ে হাড় মজবুত করে ও ভাঙ্গা হাড় জোড়া লাগাতে সাহায্য করে।

গাজর (carrots) শুধু জুস হিসেবেই নয় বরং এটি আপনি নিয়মিত সালাদ বা কাঁচা খেতে পারেন। আবার সবজি হিসেবে তরকারিতে ব্যবহার করতে পারেন। যেভাবেই গ্রহণ করুন না কেন এর পুষ্টি উপাদান সমূহ আপনার সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করবে।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।