সফল ফ্রিল্যান্সার হতে চাইলে এড়িয়ে চলতে হবে যে ৫ টি ভুল

freelancingবর্তমানে বাংলাদেশে ফ্রিল্যান্সিং (freelancing) করে সফল হওয়ার উদাহরণ প্রচুর। কিন্তু অসফল হওয়ার উদাহরণও কি নেই? অবশ্যই আছে, তবে ব্যর্থতার গল্প কম করা হয় বলে সংখ্যাটা আমরা জানি না। ফ্রি ল্যান্সিং এর মত কাজে যে কোন ভুলে আপনার সুনামের পারদ যেমন নিচের দিকে নেমে যাবে, আপনাকে দিতে হবে ভুলের চড়া মাশুল। তাই ফ্রি ল্যান্সিং শুরু করার আগে জেনে নিন, এড়িয়ে চলতে হবে কোন পাঁচ মারাত্মক ভুল (mistakes)

১) মৌখিক চুক্তি করা যাবে না (Sign contact paper with client)

আপনার ক্লায়েন্টের সাথে মৌখিক কোন চুক্তি না করে লিখিত চুক্তি (contact) করুন। এটা ঠিক চুক্তির জন্য মাঝে মাঝে একটা ইমেইলই (email) যথেষ্ট। তবে একটা লিখিত চুক্তি আপনার সময় সাশ্রয় করবে, অতিরিক্ত কাজ কমাবে এবং বিশ্রী বাদানুবাদ থেকে রক্ষা করবে।

২) সবকাজেই ‘হ্যাঁ’ বলা যাবে না (Don’t try to do all types of freelancing works)

নতুন ফ্রি ল্যান্সাররা কোন কাজে সহজে ‘না’ বলে না। এতে পরবর্তীতে নানা ঝামেলা পোহাতে হয় এবং কাজের চাপে দিশেহারা হয়ে পড়ে। কোন কাজ নেওয়ার আগে ঠাণ্ডা মাথায় ভাবুন কাজটি করার জন্যে আপনি কতটা উপযুক্ত। তারপর আরেকবার ঠাণ্ডা মাথায় ভাবুন এই কাজে আপনার দক্ষতা কেমন। তারপর সিদ্ধান্ত নিন।

৩) অনুমানে ভর করে আপনার কাজের মূল্য ঠিক করবেন না (define your expected amount of payment)

ভালোভাবে না ভেবেই কাজের পারিশ্রমিক (payment) ঠিক করে ফেলা নতুন ফ্রি ল্যান্সারদের আরেকটি ভুল। এক্ষেত্রে মনে রাখতে হবে আপনার কাজের মূল্য যেন খুব বেশি আবার খুব কম না হয়। আপনি দাম বলার আগে হোমওয়ার্ক করে নিন আপনার কাজের মূল্য কত হতে পারে আর আপনার ক্লায়েন্টের বাজেটটা কেমন।

৪) সবসময় ক্লায়েন্টের নির্দেশ অনুযায়ী চলা যাবে না (take your own decision)

হ্যাঁ, আপনার ক্লায়েন্ট যা বলবে তা সবসময়ই ঠিক। তাদের নির্দেশ অনুযায়ী কাজ করার জন্যেই তারা আপনাকে নিযুক্ত করেছে। কিন্তু একজন সফল ও জনপ্রিয় ফ্রিল্যান্সার হতে হলে কিছু সিদ্ধান্ত আপনার নিজেকেই নিতে হবে, বোঝাতে হবে আপনার ক্লায়েন্টকে। বোঝাতে হবে কেন তারা ‘X’ প্রজেক্ট না করে ‘Y’ করবে।

৫) না ভেবেই ডেডলাইন ঠিক করবেন না (fix your deadline)

সবাই আলোর গতিতে কাজ করতে চায়। নির্ধারিত সময়ের আগেই ক্লায়েন্টকে (client) কাজ জমা দিয়ে কুড়াতে চায় সুনাম। তবে সেক্ষেত্রে ডেডলাইন ঠিক করতে আপনাকে কৌশলী হতে হবে। কাজটি শেষ করতে আপনার কয়দিন লাগতে পারে তা বের করে তার সাথে আরো অতিরিক্ত ২-৩ দিন যোগ করে ক্লায়েন্টকে ডেডলাইন দিন। এতে নির্ধারিত সময়ের আগে কাজ শেষ করতে পারলে আপনার ক্লায়েন্ট যেমন খুশি হবে, আবার আপনাকে খুব বেশি চাপও নিতে হচ্ছে না কেননা আপনি হাতে ২-৩ দিন সময় আগেই রেখেছেন।

এছাড়া কাজ শেখার আগেই উপার্জনের চিন্তা করবেন না, সবসময় আপনার ক্লায়েন্টদের সাথে যোগাযোগ রাখুন। জেনে রাখুন এসব মেনে চলতে পারলে, খুব শীঘ্রই সফল ফ্রিল্যান্সারদের (freelancer) নামের তালিকায় সংযোজিত হতে যাচ্ছে আপনার নাম।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।