জেনে নিন নখের ৫ টি অবস্থা যা কোন বড় রোগের আভাস দেয়

nail-careশরীরের কিছু রোগের কারণে নখের অবস্থার পরিবর্তন হয়। হৃদযন্ত্রের রোগ থেকে শুরু করে এটি থাইরয়েডের যে কোন রোগ হতে পারে। আসুন জেনে নিই নখের পাঁচটি অবস্থা যা দেখে বুঝতে পারবেন আপনার দেহে কোন রোগ বাসা বেঁধেছে কিনা।

১) যদি নখ উঠে যায়ঃ
আপনার নখ যদি কোন কারণ ছাড়াই ভঙ্গুর হয় এবং নেইল বেড (nail bed) থেকে উঠে আসে, তবে আপনার নিচের রোগগুলো পরীক্ষা করানো উচিৎ।

  • কোন ধরণের সংক্রমণ।
  • থাইরয়েডরে কোন সমস্যা আছে কিনা।
  • কোন ঔষধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া কিনা।

২) যদি নখ হলুদ হয়ে আসেঃ
আপনার নখ যদি খুব পুরু হয় এবং নখের বৃদ্ধি খুব ধীরে ধীরে হয় সাথে নখের রঙ যদি হলদে থাকে তবে তবে যে সমস্যাগুলো আপনার থাকতে পারে।

  • Respiratory বা শ্বাস প্রশ্বাস সংক্রান্ত কোন রোগ। যেমনঃ ক্রনিক ব্রংকাইটিস।
  • হাত ফুলে যাওয়ার কোন সমস্যা, (Lymphedema)

৩) নখ চামচের মত বাঁকা হলেঃ
আপনার নখ যদি চামচের মত বেঁকে যায় অর্থাৎ নখের বৃদ্ধি সোজা না হয়ে নিচের দিকে ঘুরে যায়। এই ধরণের অবস্থাকে বলে koilonychias। এইসময় ধারণা করা হয় ঐ ব্যক্তি নিচের কোন একটি রোগে ভুগছে।

  • আয়রনের অভাব।
  • এনেমিয়া।
  • বিষাদগ্রস্ততা।

৪) নখের অগ্রভাগের অস্বাভাবিক বৃদ্ধিঃ
নখের আগা যদি খুব বেশি বড় হয় এবং তা ক্রমেই বেঁকে যেতে থাকে, তবে বুঝে নিতে হবে দেহে যে রোগ গুলো হওয়ার সম্ভাবনা আছে তা হলঃ

  • রক্তে অক্সিজেনের পরিমাণ কম হওয়া যা কোন হৃদরোগের আভাস দেয়।
  • যকৃতের কোন রোগ।
  • কার্ডিওভাস্কুলার সম্পৃক্ত কোন সমস্যা।

৫) অস্বচ্ছ নখঃ
নখ অস্বচ্ছ হয় সাথে নখের অগ্রভাগে একটি গাড় কালো ছোপ থাকে। যা Terry’s Nails নামে পরিচিত। এই ধরণের নখের মানে হতে পারেঃ

  • ডায়াবেটিস।
  • যকৃতের সমস্যা।
  • হৃদরোগ (Congestive heart failure)
  • পুষ্টিহীনতা

আপনার বা আপনার পরিবারের কোন ব্যক্তির নখের অবস্থা যদি এমন হয় তবে দ্রুত ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন। খেয়াল রাখবেন পরিবারের বয়স্ক ব্যক্তিদের এধরনের সমস্যাগুলো বেশি হতে পারে। তাই সবসময় তাদের নখের দিকে নজর রাখুন।

পরামর্শ.কম এ স্বাস্থ্য ও রূপচর্চা বিভাগে প্রকাশিত লেখাগুলো সংশ্লিষ্ট লেখকের ব্যক্তিগত মতামত ও সাধারণ তথ্যের ভিত্তিতে লিখিত। তাই এসব লেখাকে সরাসরি চিকিৎসা বা স্বাস্থ্য অথবা রূপচর্চা বিষয়ক বিশেষজ্ঞ পরামর্শ হিসেবে গণ্য করা যাবে না। স্বাস্থ্য/ রূপচর্চা সংক্রান্ত যেকোন তথ্য কিংবা চিকিৎসার জন্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের/বিউটিশিয়ানের শরণাপন্ন হোন।


লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।